Aniruddha Bose

Aniruddha Bose

Aniruddha Bose

MBBS,FRCS,FICS, Diplomate NB, FISBI

Senior Consultant Plastic, Cosmetic & Reconstructive Surgeon

DIRECTOR PROTYUSHA

Regional Institute of Plastic, Cosmetic & Reconstructive Surgery

Phone : 2337 1248
Consulting Rooms : 4008 1248
Mobile : 98300 39064

Website : www.anibose.com

Email : anibose@anibose.com     anibose@protyusha.com   anibose@smritipublishers.com   aniauthor@anibose.com

 

 


An eminent Plastic Surgeon by profession, a writer by choice, Aniruddha Bose was born on 19th September 1955 in Kolkata. He developed an interest in literature since childhood from his late father Binayendra Mohan Bose, an ex-graduate from Bengal Engineering College and late mother Ila Bose, silver medal winner in Bengali from the Calcutta University. He is a by-product of St. Xavier’s Collegiate School, Kolkata, later Medical College, Bengal and Royal College of Surgeons, United Kingdom. He spent substantial segment of his life there. Also, a couple of years in the Middle East. A renowned Consultant in Kolkata, he is recognised as one of the leading cosmetic surgeons both nationally and internationally.

From his school and college days he was into writing. Editor of the school magazine Nihil Ultra, his literary zeal was evident from early days. He contributed in several leading magazines during that period and later in United Kingdom and the Middle East.

Life is a voyage exposing its colours in varied veneers. In the year 2006 he sustained a fracture of tibia which confined him to a wheelchair for six months. Continuing his hectic practice even in wheelchair, his social life came to a halt. He was isolated from his other lively activities. To make the best of his solitary confinement, he resorted to his forlorn hobby. He plumbed the bygone literary pursuits he cherished in youth, fortified by his literature-loving engineer father and literary mother until the coercions of his career pushed it to the archive. During this period, he penned his debut Bengali novel ANWESHAN released on 25th August 2007. The novel was an instant success. It hosted his original creative self-expression in a diverse arena. The sales figures of his debut novel soared high. It stimulated his incognito ingenuity urging him to further indulge in the passion, parallel to his busy professional pursuits. His second Bengali novel NISHABDE like the previous one, not only turned out to be a best-seller representing Bengal at the London Book Fair, but also received eclectic acclaim. From then onwards there was no turning back. Destiny had set ajar a new vista of artistic creativity amidst the levied calamity. He split his time between a busy profession and literary quests. He has written several books in Bengali and English. He continues creating more in both the lingoes. It reflects his wide experience as a professional. Widely travelled, he has interacted with various cultures, races and community.

He is a member of Film Writer’s Association.

He finds solace in his creations, be it in his professional arena or creative literary pursuits.  All his novels are depiction of his inner creative ideas sometimes contrary to tradition in search for the Universal Truth.

In his busy schedule, his essence of peace rests with his love for Rabindrasangeet, classical music and his wife Smriti Bose.

BENGALI NOVELS

  1. ANWESHAN (Dey’s Publishing)
  2. NISHABDE
  3. DEKHA
  4. CHAKRA
  5. TOMAKE
  6. CANVASE
  7. SFULINGA
  8. ALO ANDHAR
  9. PROHELIKA

ENGLISH NOVELS

  1. THE VISION
  2. PURSUIT
  3. FULCRUM
  4. QUEST
  5. THE MOMENT
  6. CANVAS
  7. ETERNAL MAYHEM
  8. CONUNDRUM
  9. IF...
  10. MURDER IN THE TIME OF CORONA
  11. SHADOW
  12. SPARK

COMPLETE WORKS OF ANIRUDDHA BOSE

  1. COMPLETE WORKS OF ANIRUDDHA BOSE Volume 1
  2. COMPLETE WORKS OF ANIRUDDHA BOSE Volume 2
  3. COMPLETE WORKS OF ANIRUDDHA BOSE Volume 3
  4. COMPLETE WORKS OF ANIRUDDHA BOSE Volume 4

Publications of Aniruddha Bose:

Anweshan

Dekha (Third Edition)

Nishabde (Second Edition)

Chakra (Second Edition)

Tomake (Second Edition)

The Vision

Pursuit (Second Edition)

Fulcrum

Quest

Canvase

The Moment

Sfulinga

Canvas

Eternal Mayhem

Alo Andhar

Conundrum

Shadow

Prohelika

Complete Works of Aniruddha Bose (Volume 1)

Complete Works of Aniruddha Bose (Volume 2)

Complete Works of Aniruddha Bose (Volume 3)

If...

Complete Works of Aniruddha Bose (Volume 4)

Murder In The Time of Corona

Spark

Complete Works of Aniruddha Bose (Volume 5)

Anusaran

Reviews

Anweshan Promotion

-by You Tube


অনিরুদ্ধ বসুর দুটি উপন্যাস – দেখা ও তোমাকে সম্বন্ধে কিছু কথা

অনিরুদ্ধ বসুর দুটি বই খুব সদ্য পড়লাম – দেখা আর তোমাকে। অত্যন্ত সুলিখিত, সুখপাঠ্য রচনা। ঝরঝরে ভাষা, কাহিনি বিন্যাস পাঠকের আগ্রহ শেষ পৃষ্ঠার দিকে এগোনর জন্য আবিষ্ট করে রাখে। 

দেখা গল্পটিতে চারটি প্রধান চরিত্র। রঞ্জিতা আর অরিজিতের বিয়ে ভেঙে গেছে। রঞ্জিতা অরিজিতের দেশে ফিরে আসার সিদ্ধান্ত মানতে পারে না – পাশ্চাত্যের চাকচিক্য, উচ্চাসনপূরণের অবাদ সুযোগ এবং সর্বোপরি সামাজিক পিরামিডে উপরে থাকার এমন ব্যবস্থা ছেড়ে, একমাত্র সন্তান স্রাবস্তিকে অনিশ্চয়তার পথে ছাড়তে রাজি নয় রঞ্জিতা। সে মেয়েকে মনেপ্রাণে বিশ্বনাগরিক বানাতে চায়, দিতে চায় সর্বশ্রেষ্ঠ শিক্ষা। ভারতবর্ষের তৃতীয় মানসিকতা, এ দেশের হতশ্রী ব্যবস্থাপনা থেকে অনেক দূরে রাখা হয়েছে স্রাবস্তিকে। এমনকি বাবা অরিজিতকেও সে চেনে না। স্রাবস্তি শুধু জানে Arijit had deserted her and her mom. স্রাবস্তি বাবাকে চিনল অনেক বড় হয়ে, ব্যক্তিগত জীবনে একটা বড় ধাক্কা খেয়ে। যা তাকে বাধ্য করল ভারত অনুসন্ধানে, নিজের বাবাকে চেনাতে। কলকাতায় এসে পরিচিত হল বাবার বান্ধবীর সাথে, যে তাকে খুব সহজেই তার হারানো মেয়ের স্নেহ, মমতা দিয়ে নিমেষে আপন করে নিলো। স্রাবস্তি আবিষ্কার করল তাকে, বাবার সাথে জানল ভারতবর্ষকে। কোন বিশাল সভ্যতা এবং ঐতিহ্যের ধারক বাহক সে। এক গভীর উপলব্ধি নিয়ে ফিরে গেল ইংল্যান্ডে।

দেখা গল্পটির মধ্যে নতুনত্ব নেই। অত্যন্ত আটপৌরেগল্প, predictable গল্প। অনেক সময় মনে হয়েছে ভারতীয়ত্বের ধারণা জোর করে আরোপ করা হয়েছে, পাশ্চাত্যের ভোগবাদীতার অসাড়তা লেখার মধ্যে বারংবার এসেছে। পড়তে পড়তে মনে হয়েছে কোথাও যেন দেশভক্তির অতিরিক্ত মাত্রা, স্বামী বিবেকানন্দর আদর্শ জানাবার হ্যান্ডবুক। তবে এই ফিলিংটা তাদেরই হবে যারা বিষয়গুলো সম্বন্ধে অবহিত। পাঠকদের মধ্যে অনেকেই এই বিষয়গুলিতে অপরিচিত। অত্যন্ত সুখপাঠ্য এই বই। মূল্যবোধের চরম সংকটের দিনে এই বইটির প্রয়োজন অনস্বীকার্য।

তোমাকে বইটা অনেক পরিণত, হয়ত বিষয়টা কিছুটা অ্যাডাল্ট।  প্রথম পাঠে মনে হতে পারে বুদ্ধদেব বসুর ‘রাত ভোর বৃষ্টির’ মতো লাগবে। কিন্তু কাহিনি কিছুটা অগ্রসর হলেই বোধটা বদলে যায়। পরকীয়া সম্পর্ক decriminalized হওয়ার পরে এই গল্পের গুরুত্ব অনেক বর্ধিত। দুজন পরিণত বয়স্ক মানুষ, নারী ও পুরুষ, দুজনেই বিবাহিত, দুজনেরই সংসার আছে। ঘোর সংসারী। তা সত্যেও তারা আকৃষ্ট হয় একে অপরের প্রতি।  গল্প বলা পত্র মাধ্যমে, দু’জনের স্বীকারোক্তি – সেখানে ঠিক-ভুল, নৈতিক-অনৈতিক নিয়ে টানাপড়েন নেই। ঘটনার আকস্মিকতায়, মুহূর্তের মাহাত্ম্য, অপরের জীবনে ব্যাঘাত না হেনে দুটি মানুষের প্রেম এবং যেভাবে এই দুই ব্যক্তি তাদের ভালবাসায় শ্রদ্ধাশীল, বাংলা উপন্যাসে বিরল। Monogamy র myth কে লেখক যেভাবে ভেঙেছেন তার জন্য সাহস লাগে। অভিনন্দন অনিরুদ্ধ বাবুকে এত বলিষ্ঠ, controversial বিষয় উপন্যাসের subject বাছার জন্য। 

-by Sunetra Mitra | 07-Oct-2018


Dekha : An Audiovisual Journey

-by You Tube


Nishabde Promotion

-by You Tube | 07-Dec-2016


Nishabde Opening Ceremony

-by You Tube | 21-Dec-2008


Aniruddha Bose's “NISHABDE” (though I personally think it should be NIHSHABDE) is a disturbing novel. Disturbing in the sense that it gives a strong jolt to the complacency of the placid life and thinking of ours. It is a tale of a mosaic of conflicting paradigms. Our intra-personal paradigms, which dictate our expected behaviour in a structured social network; our inter-personal paradigms which governs our relationship with dyads, triads and groups we do or we think we do belong; social paradigms which judge or intend to judge the members of the society; our religious paradigms which keep a very strong leash on our id, ego and superego and our spiritual paradigms which try to keep a fine balance between the aforesaid groups of paradigms. It tales about the thoughts and deeds of an extra-ordinary man, a man so advanced in his intellect, that sometimes it hovers near the absurd. We, the ordinary mortals, are always striving for the success, success in everything, in every spheres of our world. Only to find that in the long run, the so-called success achieves nothing. The ultimate is beyond the mundane success and failure, and that is not, I repeat, not beyond our reach. Only we have to open our minds, focus our intellect and realize our feelings.

The story is an interesting one, with some analysis of today's aimless life of the rich, powerful and not-so-rich-and-powerful folks, even touching the taboo subject of sexual orgies and lesbianism in our society. But these all come naturally. A good story for those who dare. You may or may not like the presentation (that depends on your sets of paradigms), but one thing is certain, you cannot ignore its message.

-by Ashis Kumar Chatterjee


The novel Nishabde written by Dr Aniruddha Basu is based on the complex relationship of people of modern civilized society. The selfishness, rate-race and, endless ambitions of people is dragging the civilisation towards a dark horizon. Dr Bose's thought and concept is far ahead than his contemporary writers. A good book really.

Purnendu Bikash Sarkar

-by Purnendu Bikash Sarkar, Eye Surgeon | 05-Nov-2018


Launch of Nishabde (Second Edition)

-by You Tube | 01-Dec-2019


The latest novel of Dr Aniruddha Bose is written with a wonderful concept of analysis and detection of crime. The language is easy and drags the reader to the last page of the without interruption.

Purnendu Bikash Sarkar

-by Purnendu Bikash Sarkar, Eye Surgeon | 05-Nov-2018


It’s an eerie feeling….

Yes, eerie … that’s  the most  apt word to describe the feeling after completing the reading of  “CHAKRA”,  the murder- mystery  book by Aniruddha Basu.

Seven,  err… eight murders! And that too of beautiful young sirens and brilliant young men, spread over the vast expanse of this huge country….and by methods which are chilling to say the least!
Oops! The mere thought makes the blood curdle and the mind dumb.

The story is convoluted like the DNA double helix, yet told in a language that is lucid enough to raise interest in the most indifferent mind.

The story starts with a bang … by the discovery of a nude female dead body in a swimming pool ….the  result of the murder of a beautiful young lady, a famous model from Mumbai in a resort in distant rural  Bengal. Apparently clueless and motiveless, the case is pursued by two Police Officers (and this is a deviation from the usual deployment of Private Detectives in such novels & stories!) - one a handsome young SP hopelessly bogged down in a remote district town, and an aged  ACP bundled out in a dusty room in the Police Head-quarters in Kolkata handling files and records.
The story turns and dwindles through a maze of incidences and murders, with a multitude of characters as diverse as winsome models, show biz Mafioso, corporate bosses, a famous god-man, few brilliant students and a plastic surgeon!

A murder-mystery will be a no-mystery if anything more is said, so let’s put our pen down at this point. Let readers do their own investigative journey with the narrative to reach at the answer of who-dun-it.

As a whole, “CHAKRA” is an un-putdownable murder-mystery with some astounding secrets, a genuine path breaker in its genre.

-by Ashis Kumar Chatterjee


Aniruddha Bose's new book is a thriller with a twist. Breaking away from the usual formula for a whodunit, he explores the genre in an entirely novel way. The plot traverses all across contemporary India, introducing a wide range of characters as the drama unfolds, and there is a subtle social commentary cleverly hidden within the pages. The glamorous world of films and modelling, the rarefied environs of the medical establishment, fast-paced city life and traditional rusticity, celebrities and high profile god men, money and muscle, bureaucrats and politicians, new age entrepreneurs and old fashioned policework blend to constitute an exciting storyline. Red herrings are a plenty, and after many unexpected twists and turns, the pieces all come together at the end in a thrilling finale. Well researched and intelligently written in a racy style, the reader's attention is held until the last page as the deduction links the chain of events in a neat circle, so completing the "CHAKRA".

-by Dr.Ashis Sinha MS, FRCS, Senior Consultant General Surgeon


Crime fiction novels, by and large, belong to a certain genre. Both in English and Bengali literature they have followed general trends. Private detectives are always the ones solving the murder mysteries. In actuality, how many people hire a private investigator? In real life investigations are done by an assistant sub-inspector of police or a journalist.  Is it possible for the reader to leave behind this familiar imaginary detective from the novels? Suppose that the person who is investigating the murder is not the same person who finally solves the case. Whilst the reader is searching for the criminal and the motive for murder, will the reader search for the detective as well? Maybe the actual detective is not one of the investigators! Aniruddha Basu has penned a suspense thriller that has broken the characteristic features of murder mysteries. “CHAKRA” is not an old fashioned crime novel. Aniruddha has brought change to the traditional homicide story. As a student of science and a well known plastic surgeon, logic and modern technology have influenced his thoughts. Both crime, and the criminal, has evolved. This new school of thought may just be the main attribute of this novel. This book is a riveting read. The conclusion reveals a new philosophy behind murder. 

-by Mrs.Ratanabali Day


A Gripping Thriller with Unique Climax

Congratulations Doc. It is bound to stun everybody how you could pen such a thriller after your soulful DEKHA. Those who have read all your four books will soon consider you to be a versatile author who also is a master at what he is writing. Chakra is a fast-paced gripping thriller, which springs up surprise in every chapter, and what is unique that you have sprung one even after the very unusual climax. I feel like sharing some more of my feelings with you.

You have involved the reader from the first sentence and have presented the sequences in such a skillful manner that the reader gets clues but the masterstroke is that you have deftly woven an incident the very next moment to confuse one about the motive or who the culprits are.
I must thank you for making us remember the masterpieces of Saradindu Bandopadhyay and Dr. Nihar Ranjan Gupta where motives were not merely confined to clichéd issues like sex or money. These novels reflected the psychological implications and dealt with the deeply embedded problems of one’s mind. You have treaded that path and superbly blended Ray’s of subtly making the novel a travelogue. I must appreciate the detailed portrayal and accurate descriptions of the various locales, which enables a reader to visualize the ambience without having seen the place physically. Kudos to you for daring to be different and not create a larger than life sleuth like Byomkesh, Kiriti or Feluda. The manner in which you have portrayed the police department with each officer contributing in his own way and thus solving the crime with a combined effort is not only realistic but is also motivating. This novel can surely be a great moral booster to the men in uniform and also inspire any individual. Any person who is bored with life or depressed from routine work can be sure that an opportunity is bound to come knocking at his door but he should be vigilant enough to grab the same and also be diligent in his work to successfully accomplish it. You have also upheld the truth that “United we stand divided we fall”.

The novel appeals more since you have chosen a contemporary subject and current day socio-economic problems, which influence or affect one’s state of mind. The manner in which you have revealed the irresistible lure of show biz and the skeletons in the shadow, the fraudulent Gurus is fascinating and the reader can identify the same relating to recent incidents.

In most thrillers or detective novels, one hardly gets an insight of the psychology of the criminals. But you have explicitly narrated the psychology and the vision of the culprit and also sketched how blind can true love be where it defies all logic, ethics and social virtues.

I hope you will not take it otherwise if I request you to consult someone regarding the Hindi dialogues just the way you have acknowledged the consultation of professionals from different arenas.

To sum up Chakra – a gripping unputdownable psychological thriller.

-by Swagato Dasgupta


Chakra Promotion

-by You Tube


চক্রঃ

শুধুমাত্র গোয়েন্দা কাহিনি বা ক্রাইম থ্রিলার নয়,

অন্তর্ভেদী যুগ-যন্ত্রনার অভ্যন্তরে নূতন প্রজন্ম সৃজনের অনন্য অঙ্গীকার

ক্র শুধুমাত্র একটি ডিটেকটিভ উপন্যাস বা ক্রাইম থ্রিলার নয়, সাকুল্যে ৩৮৩ পৃষ্ঠার বইখানি পড়ার পর মনে হয়েছে - এর অন্তর্নিহিত রহস্য অনেক গভীরে, যে পাঠককে বস্তু সত্যের বাইরে ভাবসত্য ও অন্তর সত্যের খোঁজে সর্বার্থে অন্বেষু করে তোলে। লেখকের ইংরেজি-বাংলায় রচিত প্রায় সবগুলি বই পড়ার পর এই উপলব্ধি হয়েছে, পেষায় তিনি বিখ্যাত শল্য চিকিৎসক হয়েও সাহিত্য, বিজ্ঞান, দর্শন, সমাজতত্ত্ব - সব বিষয়েই তিনি সুবিধিত ও মননশীল এবং মানব অস্তিত্বের মূল রহস্য সন্ধানে চির-অন্বেষু রয়েছেন। মানুষ মূলত অত্যন্ত স্বার্থপর, চূড়ান্ত ভোগপ্রিয়, দুর্দমনীয় আকাঙ্ক্ষার জগতে সীমাহীন স্বেচ্ছাচারী। আত্মপ্রতিষ্ঠার অলিন্দে অলিন্দে ভোগবাদী মানুষের নিঃশব্দ বিচরণ। সে সব সময় উচ্চাঙ্খার বশবর্তী হয়ে ভাবে - কী ভাবে, কী উপায়ে কোন পথ অবলম্বন করে সে তার কামনা বাসনার পরিতৃপ্তি ঘটাবে। লেখক এই ভোগ বৃত্তের গহনে মানুষকে নিমজ্জিত হতে দেখে, সমগ্র মানব সমাজের মনে যে প্রশ্নটির জন্ম দিয়েছেন, তা হল - এর বাইরে তবে কী কিছুই নেই?  মানব সভ্যতার ঊষালগ্ন থেকে বর্তমান কাল পর্যন্ত, ব্যক্তি মানুষ নিরন্তর খোঁজ করতে গিয়ে কি এমন পেয়েছে , যার সমষ্টি রূপ, মানব সভ্যতাকে এগিয়ে নিয়ে গেছে? তা কি শুধুমাত্র বিজ্ঞান, ধর্ম অথবা এখনও অনাবিষ্কৃত কোনও মৌলিক সত্ত্বা যা অনিবার্য ভাবে মানুষকে সতত অন্বেষু রাখে। মানব সম্পর্কের মূল কাঠামোটি সুনির্দিষ্ট ভাবে তবে কি কখনোই গড়ে উঠবে না, যেখানে মানুষ তাঁর স্বপ্রকাশের রূপটিতে ভালোবাসা, করুণা, মৈত্রী ও সেবার ভেতর দিয়ে ফুটে উঠবে, যা তাঁর চৈতন্যর আঁধার, যা অর্থহীন নয়, লোকোত্তর নয়, তথাকথিত ঈশ্বর সমন্বয় নয়; তা সম্পূর্ণ রূপে বাস্তব সত্য- যা যে কোনও অবস্থাতেই অপ্রতুল নয় বরং অপর্যাপ্ত - কখনো নিঃশেষিত হয় না দানে, যার কণামাত্র গ্রহণ করতে পারলে, মানুষ পরশমণির মতো নিজেকে জ্যোতির্ময় করে তুলতে পারে; যার একটু ছোঁয়ায় সে আলোক সামান্য হয়ে উঠতে পারে।

লেখক এই উপন্যাসের বুনে সূক্ষ্মভাবে যে বোধ জাগিয়ে তুলতে চেয়েছেন, তা হল নিজেকে বাঁচানোর জন্য ও অন্যকে বাঁচাবার ভিন্ন পথ-ও আছে। সে পথের দিশা আমাদের পূর্বপুরুষ দিয়ে গেছেন। আজকের মানুষ, কামনা-বাসনা পরিতৃপ্তির বিশ্বতর ক্ষেত্র রচনা করে তনুসাংসে অঢেল উন্মাদ; সে অন্ধকারে হারিয়ে যাচ্ছে; আলোয় আলোয় মজে পতঙ্গ প্রথায় পুড়ে মরছে। এই উপন্যাসে লেখক এই বাস্তব সত্যটি চরম মুনশিয়ানার সঙ্গে নিখুঁতভাবে তুলে ধরেছেন, ‘বুলহিট’ প্রয়োগ কৌশল আরোপ করে চরিত্রগুলি সহজভাবে উপস্থাপিত করেছেন। পাশাপাশি গড়ে তুলেছেন এক গুচ্ছ চরিত্র যারা অন্তর্গত অস্তিত্বের গহনে গড়ে তুলেছে রহস্যাবৃত বুনোট। এর মধ্যে লেখক এমন একটি মৌল চিন্তার উদ্ভব ঘটিয়েছেন, যা নতুন চিন্তাধারার কেন্দ্রবিন্দু।

এরই মধ্যে প্রত্যেকটি চরিত্র তাদের নিজ গুণে বলিয়ান। সে ভওয়ানিশঙ্কর ভণ্ড সাধুই হোক, ডাক্তার আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়, পুলিস মধুসূদন, স্নেহাশিস, পরিতোষ সেন, রোশন, দিলওয়ান সিং, রিপোর্টার কাভিয়াঞ্জলি, ঐত্রেয়ি, অতিন কিংবা মডেল শিরিন বা ব্যাবসায়ি ইন্দ্রাক্ষ্মি, শো-বিজ দুনিয়ার কাণ্ডারি চতুর্বেদী, বা আন্ডারওয়ার্ল্ডের ‘ধামাকা’ কাম্বলে। প্রত্যেকটা চরিত্রই নিজস্বতায় মাকড়সার মতো এই চক্রের জাল বুনেছে।

অতি বিস্ময়ের বিষয় হল, লেখক এমন একটি মৌল চিন্তার উদ্ভব ঘটিয়েছেন, যা এই উপন্যাসকে দর্শনের নতুন মাত্রায় নিয়ে গেছে। শুধু নৈতিকতার ভিতটাই লেখক নাড়ীয়ে দিয়ে যায়নি, নীতিবাদীদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে মানুষ এখনও কত আদিম, নৃশংস ও বিবেকহীন। লেখার মধ্যে বিশদভাবে ব্যাখ্যা পেয়েছে সিজয়েড পারসন্যালিটি ডিসঅর্ডার - অবসেসিভ, কম্পালসিভ পারসন্যালিটি, টাইপ-আর, এ রেসিলিয়েন্ট ভ্যারাইটি। যা শেষ পর্যন্ত সাব্লিমেশনের আকারে রূপায়িত হয়েছে। যার পরিণতি লেখকের ভাষায় ‘দিস লেড টু অ্যাচিভমেন্টস মেটিরিয়ালি, অ্যান্ড অ্যাট এ লেটার স্টেজ টু এ নন-মেটিরিয়ালিস্টিক আপ্লিফটমেণ্ট’। এই কাহিনিতে লেখক ডাঃ অনঙ্গ দত্তর মুখ দিয়ে রোগের মূল কারণগুলি ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

সারা ভারতবর্ষ জুড়ে চক্রের পরিধি বিস্তৃত। চরমতম দৈহিক লালসা চরিতার্থ করতে এক শ্রেণীর শঠ, ভণ্ড, প্রতারক, সাধুবেশী শয়তান, সমাজ জীবনকে যৌনতার দিকে ঠেলে দিয়ে সুকুমার মতি সহজ সরল নিষ্পাপ জীবনগুলোকে অকালে ঝরিয়ে দিচ্ছে। তারা যৌনতার আবাহ ও পরিমণ্ডল তৈরি করে সারা ভারতবর্ষ জুড়ে যৌন ব্যাবসা চালিয়ে যাচ্ছে। এই করে জড়িয়ে পড়েছে অতি উচ্চ-শিক্ষিত ছেলে মেয়েরা যারা নিম্ন-মধ্য-উচ্চবিত্ত থেকে আত্মপ্রতিষ্ঠার তাগিদে ঘর থেকে বের হয়ে এসেছে। এই জীবনকে বেছে নিতে এরা একে অপরের প্রতিদ্বন্দ্বী। ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, রাজনীতিবিদ, পুলিস অফিসার, সাংবাদিক, কে নেই এই চক্রের গভীরে!

এই উপন্যাসে, নতুন দর্শনের প্রতিষ্ঠাতার পরিপ্রেক্ষিতে লেখক কয়েকজনের নাম উল্লেখ করেছেনঃ সক্রেটিস, জরাথ্রুস্ট, যীশু, গৌতম বুদ্ধ, গ্যালিলিও, জওয়ান অফ আর্ক, রঞ্জিত সিং, চার্লস ডারউইন...  স্বপ্নের রুপায়নেই স্রস্টার সার্থকতা। কিন্তু স্বপ্নের গভীরে বহু প্রশ্ন জেগে ওঠে, পরিক্ষিত সত্যের ভেতর দিয়ে, যতক্ষণ না তা বাস্তব ক্ষেত্রে ফলিত হয়। এই পরিপ্রেক্ষিতে লেখক অতীতকে বীক্ষণ করেছেন, যে অতীত কোনও ভাবেই নিরঙ্কুশ, নিঃশঙ্ক ছিল না।

নতুন কখনোই সম্পূর্ণভাবে নতুন নয়। তাঁর একটা পরম্পরা থেকেই যায়।

ইতিহাস বলে শান্তির পথ কখনো মানুষকে সুস্থিতি দেয়নি, সংগ্রামের পথ-ই মানুষের সৃষ্টির পথ। মহামানবের আবির্ভাব ঘটলে তাকে বলতেই হবে  - এই সুন্দর পৃথিবীকে ভালবেসে আমি নিজেকে ভালবাসতে শিখেছি। বালজেভ বলেছিল অন্যভাবে একই ভাবনায় উদ্দীপিত হয়ে ‘The world belongs to me because I understand it’। আমাদের পূর্বপুরুষ ‘আমি কে?’ এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজেছিলেন। উত্তর পাবার পূর্বে আরও একটি প্রশ্ন উঠে এসেছিল অন্তর থেকে ‘নিজেকে জানো’। মানুষ নিজেকেই জানে না। যখন জানল তখন বলে উঠল ‘আমি অমৃতের পুত্র, আমার ক্ষয় নেই। আমি অক্ষয় অজর অমর। আমি অসৎ থেকে সৎ-এ, অন্ধকার থেকে আলোয়, মৃত্যু থেকে অমৃতের দিকে চির-ধাবমান, চির পথিক আমি’। এই বিশ্ব-বিবেকবাণীর ফলিত রূপ এখনও মানুষের অধরা থেকে গেছে। যা বাস্তব সত্য, যা মানুষ নিজেকে নিজের মতো করেই খুঁজে চলেছে; বহুমাত্রিক তাঁর চিন্তার ও মননের জগৎ যা একের সঙ্গে অন্যের মেলে না। যুগ প্রতিনিধিত্বের এই মনগড়া আত্মবোধ কণ্ঠে যুগবাণীর যে জোগান দেয় তা একটি বিশেষ যুগেরই উচ্চারণ। তা অবিনাশী হতে পারে যদি তাঁর ফলিত রূপ যুগ যুগান্তরের পরিবহনটা পায় পরম্পরার ভেতর দিয়ে। বাস্তবত, সেই বার্তাবাহীদের কণ্টস্বর ক্ষীণ হয়ে আসে যুগের বিবর্তনে। এ এক অমোঘ সত্য এবং এটাই চিরন্তন সত্যও। কী বিজ্ঞানের দিকে, কী দর্শনের দিকে বা ধর্মের মানুষের বিশ্বাস আটুট থাকে না। যুগে যুগে মানুষ তাঁর প্রাণ প্রতিমাকে নিজের মতো করে সাজিয়ে সাজিয়ে নিতে চায়। নিজেকে জানতে গেলে, যে আত্মবিচার ও আত্মনগ্নায়নের দরকার, আত্মসমীক্ষণের পথ ধরে সে সেখানে যেতে চায় না।

প্লেটো তাঁর আকাদেমিতে নারী-পুরুষের সমান অধিকার প্রতিষ্ঠিত করতে এই নগ্নায়ন ঘটিয়েছিলেন। তাঁর রিপাবলিকে ক্ষীণজীবী দুর্বল রোগগ্রস্তের বাঁচার অধিকার ছিল না। প্রতিষ্ঠান যথার্থ শিক্ষার ভেতর দিয়ে সভ্যতার নব নব উন্মেষ ঘটায় যুগের চাহিদাকে পূর্ণতা দিতে এবং ব্যক্তি তাঁর প্রাণ প্রতিষ্ঠানের স্বরূপ সন্ধানী হয়। যে প্রাণের চাহিদা কামনা-বাসনা দ্বারা নিত্য উপেক্ষিত নিত্যভিক্ষু প্রাণের চাহিদা অপরিসীম বলেই তাকে নিয়ন্ত্রিত ও প্রশমিত করতে বোধিদীপ প্রজ্জ্বলিত করতে হয়। তাঁর জন্যে, সেই সব উপকরণই চাই, যা যজ্ঞ প্রদীপের মতোই স্থায়ী অনির্বাণ আলো দিতে পারে অন্ধকারকে নিয়ন্ত্রণ করতে। যারা এই উপকরণ জোগানের পথে অন্তরায় সৃষ্টি করে তাদের হঠিয়ে দিয়েই অগ্নিহোত্রীকে সমিধ সঞ্চয় অক্ষুণ্ণ রাখতে এগিয়ে যেতে হয়। প্রমিহিউজ মানব কল্যাণের জন্যে এই কজটিই করেছিলেন। সুস্থ সবল সুশিক্ষিত বোধদীপ্ত মানুষ সুখকর সুন্দর জীবনের দিশা পায় যখন তার অন্ধকার থেকে আলোয় উত্তরণ ঘটে। ফ্রয়েড এই সুন্দর সুস্থ জীবনের সমাধান করতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত পাগল হয়ে গেছিলেন।

কারণ মানুষ বড় কঠিন। তাঁর বাস্তব্জিবন সর্বতোভাবে বিয়োগান্ত, আকর্ষণীয় তো নয়ই বরং রুক্ষ নৃশংস। এই নিষ্ঠুর নির্মম বাস্তব শেষ পর্যন্ত তাকে অলৌকিকের চরণে প্রণীত হতে বাধ্য করে, যদিও তা কোনও শান্তির পথ নয়; স্বকল্পিত একটা আশ্রয়বোধ নিরাশ্রয়ই সংশয়ী একা মানুষকে সাময়িক ভাবে শান্তি দেয় মাত্র, তাকে সীমাহীন সহিষ্ণু ও ঘাত সহকরে তোলে মাত্র। নর ও নারী একে অপরের পরিপূরক - কেউ ছোট নয়, কেউ বড় নয়। সৌযম্যের শ্রেষ্ঠত্ব নিয়েই পরস্পরের জন্য সৃষ্ট। তাদের মধ্যে আসামান্য বলে কিছু নেই। অথচ বাস্তব তা স্বীকার করতে চায় না। কিন্তু অসাম্যবোধ জেগে ওঠে যখন ব্যক্তির ব্যক্তিত্বের শ্রেষ্ঠত্ব স্বীকার করতে হয়। এক্ষেত্রে প্রতিটি মানুষ এক একটি একক মাত্র। স্বাধীনতা ও আত্মবোধের জাগরণে মানুষ বিচ্ছিন্ন হতে চায় জৈবিক নিয়মেই। মানুষে মানুষে যখন বিনির্মাণ ঘটতে থাকে তখন এই ভিন্নতর প্রক্রিয়া ত্বারান্বিত হয়। যৌনতা তখন আর স্বচ্ছাচার নয়, তা একটি স্বভাবিক ঘটনা মাত্র। সুন্দর-অসুন্দর তখন আপেক্ষিক ‘Beauty is in the eye of the beholder’।  দেহবোধ তখন স্বীকৃত প্রাকৃতিক প্রকাশ। সুদীপ্ত ব্যাক্তি ও নিজের মতো করে জাগ্রত করতে পারে। নির্দিষ্ট স্ত্রীগুণ, গতিবন্ত সুশিক্ষিত কখনো পরিগ্রহণ করতে পারে না ; সমদর্শী সমাজ নারী ও পুরুষকে আলাদাভাবে চিহ্নিত করতে শেখায় না। সক্রেটিস বাবা মায়ের সঙ্গে সন্তানের সম্পর্কের ক্ষেত্রটি সুনির্দিষ্ট করতে চেয়েছিলেন। সুস্থ ও বলিষ্ঠ নাগরিক জীবন গড়ে তুলতে সন্তানকে সুনির্দিষ্টভাবে কোনও বাবা মায়ের নিজের ঔরসজাত গর্ভস্থ বলে চিহ্নিত করা যাবে না কারণ তা ব্যক্তিকে স্বার্থপর করে তুলবে। এই সাম্য কী সংঘাতিক বিধ্বংসী অস্থিরতা দয়েকে আনেনি? বীর্যবান যোদ্ধৃত্বের সৃজন ও ব্যাপ্তি সমাজকে গতিদান করে যেমন, সূক্ষ্ম অনুভূতির চর্চা অপর দিকে সৃষ্টিকে দান করে অহিংসা ও সমদর্শী হওয়ার বীজমন্ত্র। এখনে বিজ্ঞানীর সঙ্গে দার্শনিকের চিন্তন ক্ষেত্র মেরু-ব্যবধান পরিলক্ষিত হয়। একটি ছেলের সঙ্গে একটি মেয়ের সম্পর্কের গতিপ্রকৃতি পরিক্ষিত জীবনের ভেতর দিয়েই তারাই করে নিতে চায়। আরোপিত কিছু নীতিবোধের বিজ বপন করে তাদের আত্মবোধকে আহত করার অধিকার তাই তাড়া মেনে নেয় না।

এ যুগের ছেলে মেয়েরা তাই ফ্রইয়েড ও ডি এইচ লরেন্সেদের পুরনো টুপির সঙ্গে তুলনা করে। এ যুগের নারী-পুরুষ প্রথগত বিবাহ সম্পর্কে না এসে স্বামী স্ত্রীর মতো সারাজীবন কাটাতে পারে। অ্যানা কারেনিনা  ও ম্যডাস বভারিকে ব্যভিচারী আখ্যায় ভূষিত করা হলেও, তাড়া আজকের সমাজে অসম্মানিত নন। যুগ যত বদলাচ্ছে, বিচ্ছিন্নতা তত বাড়ছে। মনুষ্যত্বের সংজ্ঞা নতুন করে নির্মিত হচ্ছে। এক একটি মানুষ এখন নিজেকে সামাজিক একক ভাবতে বিব্রতবোধ করে না। এই বোধের জন্ম হয়েছে মরুভূমির চোরাবালির কর্ম-নিঃসরণ-অবস্থান্তরের মতো বাস্তবক্ষেত্রে নিজের অবস্থানকে একই অবস্থায় দেখতে শিখে। প্রাচ্যের ‘যদিদং হৃদয়ং তব তদন্তু হৃদয়ং মম’ বলার দিন অতিক্রান্ত। এখনও কোনও তরুণ বা তরুণী - ‘আমি তোমাকে ভালবাসি’ বাক্যটি উচ্চারণ করতে কুণ্ঠিত, কারণ ভালবাসার দায় নিতে সেও প্রস্তুত নয়, মনে প্রাণে। দার্শনিক কান্ট লাস্যসিক্ত কোনও প্রকাশকে মরালীটির অন্তর্ভুক্ত করেননি। এখন বহু বছরের বন্ধুত্ব একটি মাত্র হ্যাণদসেক দিয়ে শেষ করে দেওয়া যায়।

যৌনতার প্রকাশও একইভাবে চিহ্নিত, কারণ কোনও এক বিশেষ সম্পর্কের গভীরে নিজেকে খুঁজতে গিয়ে মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়ে। প্লেটো তাই সম্পর্কের স্থায়িত্ব স্বীকার করেননি। আজকের নারী অতীতের নারীর সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিতে অপারগ। কারণ সেদিন এদিনে বিশ্বতর ব্যবধান ঘটে গেছে। আর এই ব্যবধানই গতির জীবনকে গড়ে তুলে মানুষকে নূতন নূতন দিশা দান করে। বিবাহ প্রজাপতির বন্ধন নয়, কারণ আজকের জগতে প্রজাপতির মৃত্যু ঘটিয়েছে মানুষ। ভালোমন্দ এখন মানুষের মূল্যবোধ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। ভগবানের মৃত্যু ঘটে গেছে বলে এখন সবই স্বীকৃত। তাই সক্রেটিসের পরিক্ষিত জীবন এখন কল্পনা মাত্র। মহামতি নীৎসে ঈশ্বর ভাবনার জগতে সুনামি ঘটিয়ে দিয়েছেন। তখন আর কিছুই পরম্পরা নির্দেশিত নয়; প্রাচীন মূল্যবোধ দ্বারাও নিয়ন্ত্রিত নয়। ফ্রয়েড মানব সভ্যতার ভবিষ্যৎ বিষয় অত্যন্ত চিন্তিত ছিলেন শুধু নয়, সন্দিগ্ধ ছিলেন । অন্যদিকে ওয়েবার অনেক বেশি মননশীল ছিলেন বিজ্ঞান, নৈতিকতা ও রাজনীতি বিষয়ে। তিনি নিজেকে স্থায়ী বিয়োগান্ত জীবনে একজন অস্থায়ী অস্তিত্বমাত্র মনে করতেন। তিনি প্রত্যক্ষ করেছেন, একটা অস্থিরতা অনিশ্চয়তা মানুষকে অহরহ মানুষকে তাড়িয়ে নিয়ে চলেছে। এবং মূল্যবোধ এই সবের বহু ঊর্ধ্বে অধরাই থেকে গেছে। বিজ্ঞান তাকে নাগালের মধ্যে এনে দিতে অপারগ। অঙ্ক কষে নির্দিষ্ট পরিচালনা শক্তির নির্ভুল প্রয়োগ করেও বিচ্ছিন্নতা থেকে মুক্ত করা যাচ্ছে না। এখানে যুক্তিশক্তিহীন মানুষ এখন যে জীবনের অঙ্গনে প্রবেশ করেছে তা নিন্দিত, অনিন্দিত, যাই হোক সে যুগস্বর হয়ে বিশ্বকে মাতিয়ে তুলেছে। তাঁর ভেতর যে বিপ্লব ঘটে চলেছে, তাঁর মূলে অবস্থান করছে বিজ্ঞান-প্রযুক্তি-উৎপাদন জনিত অভাবনীয় সমৃদ্ধি। এখন আর ১৬৮৮ ইংল্যান্ডের গ্লরিয়ান রেভলিউশন বা ফরাসি বিপ্লবের মতো অবস্থার আবির্ভাব ঘটবে না কারণ মানুষের ভেতরে বিপুল বিবর্তন ঘটে চলেছে অহরহ। এখন লেফট রাইটের দ্বন্দ্ব প্রকট হতে পারবে না। এখন মানুষ যতটা নিখুঁতভাবে বিচক্ষন ধুরন্ধর কৌশলী হতে পারবে ততই তাঁর মঙ্গল। তাঁর জন্য নৈতিকতা রক্ষা এখন কোনও অবশ শর্ত নয়। টিকি টুপি ত্রিশূল চার্চের ঘণ্টাধ্বনির এখন বিশেষ তাৎপর্য নেই।

সক্রেটিষের কল্পনায় ছিল সর্বদা উজ্জ্বল আলোকিত শহরজীবন, যেখানে নাগরিকের অন্তরে ছিল সুন্দর ও সত্যের নিত্য অবস্থান। অন্যদিকে হবস অনুভব করেছিলেন মানুষ একান্তই একা এবং তাঁর জীবন ছিল নিত্য বিধ্বস্ত ঘৃণ্য নিচ ও নৃশংস। হবস, লক, রুশো উপলব্ধি করেছিলেন যে কারণেই হোক প্রকৃতিই মানুষকে যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিয়েছে। মানুষের এই অবস্থানের ভগবান নেই, ভগবানের করুণা নেই, অনুকম্পা নেই। মানুষ নিজের চেষ্টাতেই এগিয়েছে এবং নিজের বর্তমান ভবিষ্যৎ ব্যাপারে নিজেই ভাবতে শিখেছে। মানুষ নিজেই অভূতপূর্ব সত্ত্বা।

প্রশ্ন হল, সেই সত্ত্বাটি কী মনস্তত্ত্বই মানুষকে এই প্রশ্নের সম্মুখীন করেছে? যদি এটাই মেনে নিতে হয় তবে তো প্যান্ডেরার বাক্সটি খুলে যায়। সেক্সপিয়ার রচিত চরিত্র ইয়াগোর মতোই বলে উঠবে ‘I never found men who knew how to love himself’। আজকের মনস্তত্ত্ব যার জন্মদাতা। মেকিয়াভেলি, মানুষকে প্রচোদিত করে এই বাস্তব সত্যেই স্থির হতে চায় যে, নিজেকে জানতে মানুষ স্বার্থপর হবেই। তাঁর ‘সেলফ’ বা স্বয়ংকে খুব গভীরভাবে জানতে হবে, নিজের কল্যাণের জন্যেই, যে স্বয়ং বা সেলফ বা স্বয়ংবোধ অত্যাধুনিক এক বোধ যা আত্মার সমার্থবোধক এক নবীন আবির্ভাব বলা যায়। তাঁর উৎকর্ষের পরিধি অসামান্য, যা মানুষকে, নিয়ত সৃজনশীল রাখে।

শিল্পের জন্য স্বাধীনতা চাই-ই চাই। এক্ষেত্রে মানুষ যুক্তিতে চলে না, প্রশ্নাতীত এক অনুভবের আন্দোলনে শিল্পী নিজের মনের বিস্তার ঘটিয়ে চলে। যেখানে কোনও বিজ্ঞানবোধ কাজ করে না। হোমার, দান্তে, রাফেল, বিঠফেন, সেই শিল্পী সত্ত্বার বারক ও বাহক। তারা তাদের যুগ অতিক্রম করে গেছেন। এখন পুরনো কোনও কিছুর আলোকে নতুনকে দেখা যাবে না। এখন যে কালচারের বিপুল পরিবর্তন ঘটে গেছে, সেখানে মানুষ তার প্রাধ্যানেই চিহ্নিত হবে এবং এই বিশেষত্বই তাকে বাঁচিয়ে রাখবে।  মানুষের মনুষ্যত্ববোধ গড়ে ওঠে যুক্তিযুক্ততা ও কল্যাণবোধের জাগরণের মধ্যে দিয়ে। ধর্ম যদি থাকে, তবে যুক্তি তার বুনিয়াদ হবে না কোন ভাবেই। ধর্ম বিশ্বাস মাত্র, বিস্ববান বিজ্ঞান বা যুক্তিনির্ভর নয়। কালচারের জন্ম যুক্তি ও ধর্মের সংশ্লেষ থেকে। যা আমরা ভালবাসি, তাই ভালো।

চক্র উপন্যাসের ভিত, একদিন জেগে ওঠা মোজেস, যীশু, হোমার, বুদ্ধ প্রমুখ মহামানবদের চেতনার বর্তমান রূপে। এই বিকল্প পথে এগিয়ে যেতে ঝুঁকি আছে। যেমন ভগবানের মৃত্যু ঘটিয়ে মানুষ এক চরম ঝুঁকি নিয়েছে। এই ঝুঁকি নেওয়ার পরও আপসের পথ ধরতে আগ্রহী। এই আপসে যদি শান্তি আসে তবে আপত্তিই বা কোথায়? মানুষ যে অভিজ্ঞতা থেকে সার্বিকভাবে মুক্ত তা-ও কি বলা যাবে? নতুনভাবে বাঁচা কিংবা মরা এক নতুন চেতনা। সক্রেটিসের ভাষায় ‘Learning how to die’।

চক্র অন্ধকার থেকে আলোয় উত্তরণের পথ খুঁজতে চেয়েছে। উপন্যাসটি সেই অর্থে মানুষের প্রেরণার দিক। যুগ-যন্ত্রণার সব হলাহল কণ্ঠে নিয়ে অমৃতকামী মানুষ, শুভ-অশুভের দ্বন্দ্বের অবসান ঘটাতে চাইছে। যুক্তির দিক দিয়ে যজ্ঞবেদি রচনায় বিজ্ঞান প্রযুক্তি তাকে কতটা নির্ভরতা দেবে, তা প্রশ্নাতীত না হলেও নতুন চেতনার সংকল্পে মানুষ নতুন করে কিছু পাবে, এ আশা করাই যায়। স্রস্টা যিনি, তিনি সৃজন করেন, পরিগ্রহণের আনন্দ যাদের জন্যে, এই সৃষ্টি তাদের। চক্র বাস্তব জীবন সত্যকে প্রকটিত করে মানুষের এগিয়ে চলার পথকে সুগম করতে চেয়েছে। যুক্তি তর্ক বিশ্বাস অবিশ্বাসের বেড়াজাল থেকে, মানুষের উত্তরণের পথে অধরা বলেই চক্রের চক্রায়ন চলতেই থাকবে। অপর দিকে তার থেকে মুক্তি পাবার সাধনা একই সঙ্গে চলতে থাকবে।

গ্রন্থটি পড়তে শুরু করলে শেষ না হওয়া অবধি পাঠক কী হতে চলেছে, এর পর কী হবে - এই চিন্তায় মজে থাকে। সাবলীল ভাষা সম্পদে ঋদ্ধ গ্রন্থটি। যৌনতার বিবরণ পরিশীলিত মনকে বিব্রত করে কখনো কখনো। ইংরেজি ভাষায় সড়গড় না হলে এই বইয়ের মর্মোদ্ধার করা অসম্ভব মনে হয়।

 

-by Amiya Bandyopadhyay | 20-Mar-2017


Review of Aniruddha Bose’s  TOMAKE

So, what is love? And what is truth? Is love a play of hormones and neurotransmitters? And is truth a perception of what is apparent, rather than absolute? Can a moment of pure love exist for all eternity? Aniruddha Bose has lovingly dealt with those concepts in his novella “TOMAKE”.

A dialogue between a man and a woman is chronicled in a series of intensely lyrical “love letters”. That is commonplace enough. What is remarkable is the realisation that it all “happens” in a moment of time. One is left wondering - was that all just imagination? But something seems to bother the reader, till the realisation occurs, almost like an epiphany, that truth and love cannot be qualified or quantified by only the linearity of time, but by the absoluteness of it.

Discussing about it further would give the plot away, and would take away from the reader the serendipity of discovery.  Read the book, and have the love that it nurtures overwhelm you with its fulfilling joy, while you marvel at the concept of time taking on an entirely new dimension, as dealt with by Aniruddha in this unique literary creation.

-by Dr Asis K Sinha  MS,FRCS


Reviewing Aniruddha Bose’s TOMAKE...

How does one classify a work like “TOMAKE”? A philosophical meditation on the relation between Time and Space in forming human experience? Another literary exploration of the ever-eluding idea of Love? An experiment in textual representation of the inseparability of Reality and Imagination?
I shall leave it to each individual reader of this very original novelette to work out an acceptable classification for herself. As a reviewer my job is to provide the reader with an entry into the structure of idea of the work to facilitate the reader’s appreciation of it.

On the face of it, the story is structured in the age-old tradition of narrating the development of a love-relation between a man and a woman in the form of a compilation of their love-letters to each other over a period of time. In that sense, as one letter follows another, the reader is safely led along the path of believing that here we are reading a story about two lovers who are gradually discovering each other over a period of linear Time. The reader is lulled into the security of our familiar world where we see Time as divided into the three zones of Past, Present and Future and understand the development of any relation as a journey from the Past to the Present and on to a Future.

How does one classify a work like “TOMAKE”? A philosophical meditation on the relation between Time and Space in forming human experience? Another literary exploration of the ever-eluding idea of Love? An experiment in textual representation of the inseparability of Reality and Imagination?

I shall leave it to each individual reader of this very original novelette to work out an acceptable classification for herself. As a reviewer my job is to provide the reader with an entry into the structure of idea of the work to facilitate the reader’s appreciation of it.

On the face of it, the story is structured in the age-old tradition of narrating the development of a love-relation between a man and a woman in the form of a compilation of their love-letters to each other over a period of time. In that sense, as one letter follows another, the reader is safely led along the path of believing that here we are reading a story about two lovers who are gradually discovering each other over a period of linear Time. The reader is lulled into the security of our familiar world where we see Time as divided into the three zones of Past, Present and Future and understand the development of any relation as a journey from the Past to the Present and on to a Future.

The author shatters this comfortable structure of understanding a relation at the very end of the story. Without giving away the end, let me just say that the author here forces us to re-examine our socially familiar mode of perceiving human relations as always strung from a linear notion of Time comprising the Past, Present and Future. The author introduces here another dimension of Time – the Vertical one – that cuts through our familiar mode of understanding Life, Experience, Feelings and Relations to bring us to an uncharted territory where we are challenged to rethink the very reality of our existence.

The author shatters this comfortable structure of understanding a relation at the very end of the story. Without giving away the end, let me just say that the author here forces us to re-examine our socially familiar mode of perceiving human relations as always strung from a linear notion of Time comprising the Past, Present and Future. The author introduces here another dimension of Time – the Vertical one – that cuts through our familiar mode of understanding Life, Experience, Feelings and Relations to bring us to an uncharted territory where we are challenged to rethink the very reality of our existence.

-by Dulali Nag


Tomake Promotion

-by You Tube


অনিরুদ্ধ বসুর দুটি উপন্যাস – দেখা ও তোমাকে সম্বন্ধে কিছু কথা

অনিরুদ্ধ বসুর দুটি বই খুব সদ্য পড়লাম – দেখা আর তোমাকে। অত্যন্ত সুলিখিত, সুখপাঠ্য রচনা। ঝরঝরে ভাষা, কাহিনি বিন্যাস পাঠকের আগ্রহ শেষ পৃষ্ঠার দিকে এগোনর জন্য আবিষ্ট করে রাখে। 

দেখা গল্পটিতে চারটি প্রধান চরিত্র। রঞ্জিতা আর অরিজিতের বিয়ে ভেঙে গেছে। রঞ্জিতা অরিজিতের দেশে ফিরে আসার সিদ্ধান্ত মানতে পারে না – পাশ্চাত্যের চাকচিক্য, উচ্চাসনপূরণের অবাদ সুযোগ এবং সর্বোপরি সামাজিক পিরামিডে উপরে থাকার এমন ব্যবস্থা ছেড়ে, একমাত্র সন্তান স্রাবস্তিকে অনিশ্চয়তার পথে ছাড়তে রাজি নয় রঞ্জিতা। সে মেয়েকে মনেপ্রাণে বিশ্বনাগরিক বানাতে চায়, দিতে চায় সর্বশ্রেষ্ঠ শিক্ষা। ভারতবর্ষের তৃতীয় মানসিকতা, এ দেশের হতশ্রী ব্যবস্থাপনা থেকে অনেক দূরে রাখা হয়েছে স্রাবস্তিকে। এমনকি বাবা অরিজিতকেও সে চেনে না। স্রাবস্তি শুধু জানে Arijit had deserted her and her mom. স্রাবস্তি বাবাকে চিনল অনেক বড় হয়ে, ব্যক্তিগত জীবনে একটা বড় ধাক্কা খেয়ে। যা তাকে বাধ্য করল ভারত অনুসন্ধানে, নিজের বাবাকে চেনাতে। কলকাতায় এসে পরিচিত হল বাবার বান্ধবীর সাথে, যে তাকে খুব সহজেই তার হারানো মেয়ের স্নেহ, মমতা দিয়ে নিমেষে আপন করে নিলো। স্রাবস্তি আবিষ্কার করল তাকে, বাবার সাথে জানল ভারতবর্ষকে। কোন বিশাল সভ্যতা এবং ঐতিহ্যের ধারক বাহক সে। এক গভীর উপলব্ধি নিয়ে ফিরে গেল ইংল্যান্ডে।

দেখা গল্পটির মধ্যে নতুনত্ব নেই। অত্যন্ত আটপৌরেগল্প, predictable গল্প। অনেক সময় মনে হয়েছে ভারতীয়ত্বের ধারণা জোর করে আরোপ করা হয়েছে, পাশ্চাত্যের ভোগবাদীতার অসাড়তা লেখার মধ্যে বারংবার এসেছে। পড়তে পড়তে মনে হয়েছে কোথাও যেন দেশভক্তির অতিরিক্ত মাত্রা, স্বামী বিবেকানন্দর আদর্শ জানাবার হ্যান্ডবুক। তবে এই ফিলিংটা তাদেরই হবে যারা বিষয়গুলো সম্বন্ধে অবহিত। পাঠকদের মধ্যে অনেকেই এই বিষয়গুলিতে অপরিচিত। অত্যন্ত সুখপাঠ্য এই বই। মূল্যবোধের চরম সংকটের দিনে এই বইটির প্রয়োজন অনস্বীকার্য।

তোমাকে বইটা অনেক পরিণত, হয়ত বিষয়টা কিছুটা অ্যাডাল্ট।  প্রথম পাঠে মনে হতে পারে বুদ্ধদেব বসুর ‘রাত ভোর বৃষ্টির’ মতো লাগবে। কিন্তু কাহিনি কিছুটা অগ্রসর হলেই বোধটা বদলে যায়। পরকীয়া সম্পর্ক decriminalized হওয়ার পরে এই গল্পের গুরুত্ব অনেক বর্ধিত। দুজন পরিণত বয়স্ক মানুষ, নারী ও পুরুষ, দুজনেই বিবাহিত, দুজনেরই সংসার আছে। ঘোর সংসারী। তা সত্যেও তারা আকৃষ্ট হয় একে অপরের প্রতি।  গল্প বলা পত্র মাধ্যমে, দু’জনের স্বীকারোক্তি – সেখানে ঠিক-ভুল, নৈতিক-অনৈতিক নিয়ে টানাপড়েন নেই। ঘটনার আকস্মিকতায়, মুহূর্তের মাহাত্ম্য, অপরের জীবনে ব্যাঘাত না হেনে দুটি মানুষের প্রেম এবং যেভাবে এই দুই ব্যক্তি তাদের ভালবাসায় শ্রদ্ধাশীল, বাংলা উপন্যাসে বিরল। Monogamy র myth কে লেখক যেভাবে ভেঙেছেন তার জন্য সাহস লাগে। অভিনন্দন অনিরুদ্ধ বাবুকে এত বলিষ্ঠ, controversial বিষয় উপন্যাসের subject বাছার জন্য। 

-by Sunetra Mitra | 07-Oct-2018


Launch of The Vision by Dr. Shashi Tharoor

-by Youtube | 26-Feb-2012


The Vision Promotion

-by You Tube


After reading two books by Aniruddha Bose which were originally written in Bengali and then translated into English by some translator, I have finally completed reading “Pursuit” written originally in English by the man himself. This book is very different than the ones I read before and it has also become my favorite novel by the author. It is a great thriller which also has philosophical and spiritual tone to it. It is great to read such varying scenarios in a single book of 300 pages. And as author claims this is actually a thriller which possess – multiple mysterious murders; beautiful sirens; handsome hunks; powerful men who can change the world; a staggering international conspiracy; highly complex international geo-economics and politics; the just dose of sex and so on.

Mr. Bose have written this novel in a very fluid language which makes it easy for reader to finish it in one sitting. The narration is perfect as author have kept the timeline of the events simple. The way multiple characters are developed also makes it easy for you to understand them and their mindset. The protagonist, Elena, is described so beautifully that you wish to read more about her every time author shifts his attention to other issues in the book. Panchet Dzongpa is another character about whom you want to keep reading as the kind of spiritualism, universal peace and harmony that he preaches to Elena surely gets imbibed in your mind too. The inspectors and officials are also given a smart personality which makes this thriller little more special.

The first half discusses about how several murders take place and how police keeps doubting different suspects. Reading about how personalities from different countries are thinking about becoming the superpower of the world and later knowing their involvement with the murders is really surprising. In between all of this, the philosophical quotient maintained by Elena and Dzongpa is also a boost to this story as the preaching is totally different from what is actually happening in other parts of the book. Haha! The good research of the author is evident from many geo-economical and political issues that he has discussed through his characters.

The second half becomes more interesting than the first as the whole attention of the officials gets focused towards a single girl and she is being accused of all the murders. It’s delighting to read the anti-climax of how the whole thing got unfolded and knowing the tactics of the murderer and the people behind him/her. The way climax is ended again with the spiritual touch gives this book a pleasant and peaceful ending. While reading this thriller, I could feel that the author almost belongs in the same league of Ravi S and Ashwin S. This book discusses some complex topics but still attract the masses. I give it an extra-ordinary 4.5* out of 5.

-by Abhilash Ruhela


Pursuit - A Gripping Thriller

-by You Tube


Pursuit by Aniruddha Bose is a touch chalk and cheese as of its kind with numerous puzzling assassinations occurring in India and overseas, striking enchantresses, gorgeous studs; influential operates who can transform the planet, deteriorating like skittles in an overwhelming global scheme of extremely intricate intercontinental geo-strategy and affairs of state with the law enforcement lingering oblivious.

The central character of the tale, Elena, a very sharp stunning youthful woman, who is lucky enough to find wisdom from the distinct worlds of the contemporary western as well as the eternal beliefs of Hinduism and Buddhism, find wedged in the mesh and run the length of the current with the constabulary firing up to consider that she is the real assassin.

In a fabulous lavish tavern in the Middle-East, a few of the most dominant gluttonous global bigwigs connive to overpower the earth, and tip out the blood of the naive and at fault equally to control the global financial side, where minor personalities are ensnared in this net overwhelmed by the dealings outside their rule and grasp.

Amidst this bedlam, there stay put a canopy Buddhist parson in a secluded monastery in the lofty Himalayas, who reflect about these messy currents and discern a lot of stuff and takes a pew in his out-of-the-way holy place, observing and exploring the proceedings in the planet, like the huntsman.

In addition to probing the raison d'être of the killings, Elena is dedicated in her quest for the grounds of her way of life, or fairly the survival and connotation of the existence as a sum total and is together a straightforward and so far an intricate idol with a realistic hand in provisos of how she glance at the slayings on the trot on that incredibly emaciated contour between ethics and defence arrive athwart a great deal sturdy through the evaluation operate.

The book has all a suspenseful story should have, conversely, what craft it gets to your feet out in the throng is its viewpoint, the compassionate slant and the worldwide significance of concord and agreement and entwining in the romance that swiftly appear behind on the booklover as scram from the cerulean that is usual in a acme set crime novel. The narrative concludes in a surprising eye-opener of the facts.

The volume under no circumstances be unsuccessful to enthuse and grasp your attention and is capable to stay the expectancy going as it stirred all the way through the phases of the escapade with the writer develop a sturdy champion with a lot of stratum that whilst adroitly heave reverse going on to expose a convoluted lady on an assignment to thwart big shots.

Cleaved from present-day dealings, the characters are forceful and the leading actors facade and aisle adorably with the writing and is a proof of how we are drawn on to perceive our supermen’s with the author having a method of charging you involved in his characters even those who are the terrible chaps or less significant in the impressive plot. You discern the individuals that you boast to interpret about to truly get back to the characters and the plot you care for.

This paperback is off on the trot from the opening sentence and doesn't impede until the conclusion and if you're glancing for grand narrative this is the reserve for you, with an exhilarating read and what this tome furthermore own is the tap of widespread glum that influence each judgmental bloke and lady of each ethnic group.

The author accomplishes an exceptional work poising among exploit, expectancy, and sequential inscription with an electrifying rancount that will put you down on the periphery of your settle which stay the plot fluid and craft the order tough to set behind full of enjoyable amusement, and a manner to get away with Elena as your trip lead.

This volume is unadulterated testosterone raiser and is an ideal interpret if you get pleasure from clandestine killer sort exploits and is exhilarating with all of the twirl and twists that will get you captivated chaste, constant, impenitent, clear-cut and complete and if you have a feeble spirit, have your linctus near by as this tome is a lot further than a murder mystery and is in addition an account that carry you from your lounger to a stifling atoll, so wonderfully pinched were the vistas.

Fast paced, funny and feat filled, the author recount the crime story in his matchless method, and draw the booklover like a potent inducement offering a thought inciting spellbinding thriller. The raison d'être this paperback is so grand is that it is engaging and entertaining from beginning to end where every reader ought to encompass the insight to spot, heed and analyze what is going on in the region.

-by Mr.Kalyan Panja


Launch of Pursuit

-by You Tube | 07-Jul-2019


Fulcrum Promotion

-by You Tube


Fulcrum : Aniruddha Bose

Fulcrum is a murder mystery delivered in English by Partha Pratim Roy from Aniruddha Bose's runaway success book 'Chakra' and is a pleasant interpret crafted firm to be set behind, owing to its rate of knots as the sections of the jigsaw conundrum get sited in their exact spaces with the spin of each sheet and finish in the concluding folios of a crafty and droll obscurity that is inhabited with terrific temperaments. 

In the midst of the diverse cops, forensics folks, functioning on a felony vista in creative writing, there's a fine possibility that one being will discern a lot further regarding what occurred than everybody in addition in attendance since they executed It. This is relevant to whichever offence but the important trait is that the canvasser is in truth the executor, whether the addressees identify it or not . 

ln actual  illicit enquiry, it's not unusual for the  crook to someway effort  to slot in himself into the enquiry to keep tag on it, or  for personality sake. In this trope, it occurs that the reprobate Is in fact an authorized brand of the enquiry, and is fairly doubtlessly  readily escort  the conspire off beam  as much as likely. 

Swerving left from the trodden trail the author has interlaced a story of stratagem and trepidation  straddling transversely the realm  and is neither a tale of the archetypal detective and the assassin as we would like to suppose, nor does it have the brain playoffs.  

This is a narrative of usual flesh and blood individual beings undertaking constabulary exertion as one would come across in daily existence bonafide and well surrounded by the sphere of promise. The countless dispositions that draw closer into cooperate in this excitement prove infirmity of the wits as to depart the booklover impressed. 

This is an out of the ordinary notion and fashion a brilliant root for the powerfully built scheme with moral fibres who are competently represented. lt is a connecting account, finely in black and white with a curiously unlike executor with a reason that one would by no means conjecture. The design is a fine one, the truism and gaud1e dialog all the way through the volume craft for the capable plot. 

A carefully finely in print anecdote of exciting manoeuvre, the attractive yam is both obscurely crafted and masterfully implemented. ln count, the mordant humour cord all through is an ideal compensate to the dourness of the theme and its profound poignant  connotation, counterbalance the on the whole bathos of the legend ju t adequately. It does have an attention­ grabbing interweave at the dosing stages, and surely if you like the unsentimental pulp creative writing obscurity, this paperback does craft for a suitable luminous interpret. 

The proper plea of the chronicle though, lies in the  masterful  manner  hat the author utilizes the apparatus of their preferred field. By counting a numeral of artificial set  off and  pass on, they certify that  the right personality of the slaughterer stay put covert until  the  extreme conclusion and even then the booklover  is taken  aback to find  out that the eventual paint of the assassinate is distant from  what you'd  imagine of an emblematic exterminator. lngeniuus ly imaginative with firm writing style and constant taut discourse, the reserve is a can't let pass crime novel inside a murder mystery. The order is compelling clever, and a coal comprehend which enthusiastic mystery aficionados cannot help but be schemed by the connive of this volume.

-by Kalyan Panja | 24-Mar-2013


Is love always a conflict and what could be taken as a base of humanity?

In Quest the author has wandered in search of humanity.
In this novel the dominant characters have moved around two central characters - Animesh and Anwesha, throughout the storyline and all the characters have been skillfully crashed, interwoven and thrown into the vortex of challenging modern life, where ceremony of innocence got drowned, the best lacked all convictions. All the characters representing middle and upper class middle families, with full of passionate intensity, have engaged themselves in search of identity to make life passionately meaningful and still more challenging. Thin inner selves have intense craving for freedom for which they subject themselves to prevailing and enchanting calls of the passing days - full of ruling interest. Thus, the dominant characters always have been under the pressure of circumstances forced upon them and each character depicted upon its epoch and not upon its own nature.

Does it mean that there is otherwise known human nature?
The author covertly puts up a valid and relevant question - does a person, at all have a foundation of his own, solid and trustworthy, which could be taken as a base of humanity? The answer to this pertinent question, the author has thrown to the readers to decide. The Quest has through the events established, that love is always a conflict and conflict stands valid because lovers could always be withdrawn. When one wants to free himself from the whole of the other, but other is always trying to free himself from the hold of the other, that there is always trying to free himself from him. One has to go well in the heart of it to fish out, what life in particular or general stands for. The author's role in characterization of the dominant players in this novel has not been established in bad faith. The contingency of ongoing human existence has freed the very root of this novel, where-in sex played a predominant role and aspiration, in ascending order strived for attending the myriad of lustful life. The author thus has wanted to discover the essentials of relationship and draws the readers to be a part of his quest, which perhaps would never end in anything, but in love, beyond all measures of marital computation.

Initially the orthodox leaders would term Quest - a lewd literature but would eventually start mending opinion when they would be driven search into their souls. As a fiction writer, the author in a broader spectrum of human existence, has investigated that life and reality-in-self, are a mystery that is not explicable in terms of relationship, where violating and impulsive forces shape the destiny of each character, but ultimately to prove that technical achievement would be measured by the degree in which the actions of human being are governed by compassion and love, not by greed, lust and aggressiveness. The author in this novel has made a mark of the spots of time, with distinct preeminence has retained in renovating virtue backed by spirituality.

The Quest is highly expository and critical to point out of problems of modern life and the author knows it very well that as a novelist his prime duty is to only expose and not much more than that. The conflicted characters are daringly living in their interrelated domains and each character interestingly has sight, sound and smell, which are the basics in exercise of their potent cry for freedom, though that is always a distant dream since human beings are always enmeshed in the web of uncertainty.

In this novel the author has made a grand tour of Indian mind and as a writer of his own age, has counted heavily the suffocating human existence, which has been penetrating the society as a whole, but finally he could undo the veil, to also reveal the essence of life and that essence is all pervading. In this area he is not evasive of his responsibility. The Quest confirms unending journey of human life, with hope to ultimately realize that the family is not always only ones flesh and blood, but the climate of the heart and the relationships are always extension of the essence of life that would have attained, only when flesh and blood add protein to the pulsating heart.

-by Amiya Banerjee, Author & Book Critic


Quest Promotion

-by You Tube


Quest: Aniruddha Bose
 

‘Quest’, Aniruddha Bose’s first Bengali novel translated in English by Anwesa Sengupta and Aniruddha Bose the pursuit for a true abode is successful in portraying the predicament of contemporary Indian culture demactions and marches to the strange world of mysticism while extremely cogently illustrating human estrangemen fresh developments everyday.

This squat parable orbit around the well­ off and upper middle class scene of the developed social order with the home in a chalk and cheese light, as well as pretty clearly recounts human affiliation fertile enough to carry on irrespective of their societal status and natal bond with a special perforate waiting to be set on by a reader’s min to this puzzle.

Even though every now and then overt, the writer attempts to seep out the central human response to the tremble affairs of today’s world with the firm metaphors of human conduct in certain condions possibly will raise manifesting mind with the response to these queries are also extremely intensely pictured in this work of fiction.

This engrossing book is not restricted to the tale of a lady and the impact of western way of life on Indian culture readers possibly will sense that way with universality is the larger premise of this creation, which is conspicuous through.

Tossing up and down through their profits and losses, achievements and disappointments, adore and abhorrence denunciation, they all go in the course of this riddle of existence with the reality they find out is time is nothing assortment of interconnecting loop of affairs, which takes it in sliver, but certainly not in one piece.

We accept as true speciously in relations but we boast of a hard to pin down reflection of our way of life where j figure out that our existence is nothing but a fraction of a bigger voidness with the eventual fact is that we brea abode in loneliness and breathe our last by ourselves in it.

The well developed and very relatable characters of this narrative are all wagers in the fixture of verve with so m certainly not come across depicted in characters and panoramas were drawn coherently in this volume with the characters is incredibly dramatic and we become conscious that a few human qualities sadly do not vary and tha that different.

The whole thing is so delightfully written here which has all the elements essential to formulate a fascinating dramatic character starts off black or white, other than in the conclusion, all that are left are hues of grey with the incongruosly the astringent saccharine sonata of being, with the manner passions appear to go up in importance at times and off to nothing, of how belief is ruptured, and how individuals descend in and out of love.

The account is finely paced for most part of the paperback, well written book as well as very exciting on the humour wonderful stuffing which is appealing, believable and capricious, perhaps a few of the state of affairs in the rese manner we glance at existence, or our behaviour but the response of the characters to the diverse struggles the human and so familiar to us all.

The words, the composition, the effortless patent splendour of it are poignant with the style is secular and sad w the sequence of events with the streams can cleanse us away in its firm, engaging currents while the analogies words every feeling in this volume, is a potent mechanism that patches up one's mind in an outgiving manner.

This emotions towards the conclusion of the volume were well written with a story as regards adore, wishes, obcession, dreams, associations and desire and at end candour, truth and errands and is an ought to be interpret for anyone comprehend on human relationships as the characters give way to sentiments that are prevailing in humans.

The title in all its whole can't sum up the entire fairy­tale, not even the quintessence of it save for, it does guide exquisiteness in the chronicle, and the writer doesn't let down you with an astute intensity that means a hunt fo discover the meaning of adore, existence and our way of life.

-by Kalyan Panja | 14-Jan-2015


Canvase Promotion

-by YouTube


The most remarkable aspect of this book that astonishes you as you flip through the pages is the fact that there are seven short stories about Nandini and then starts the actual novel that intertwines all the seven stories and reveals one of life’s starkest truths. It takes a lot of concentration and deft handling of characters, each reaching a culmination, to write such a novel. I guess it can be said that Aniruddha Bose’s experimental style is unprecedented in Bengali literature may be in English too. Intelligent weaving of situations, emotions and words make it an excellent read. I can say this book would make an equally excellent movie in right hands. Wish to see this on screen someday. All the best. 

-by Purnasree Nag MA


অননুকরণীয় অন্বেষণঃ মনুষ্যত্বের অন্তহীন খোঁজ।।

ক্যানভাসে - অনিরুদ্ধ বসু

(গ্রন্থ আলোচনা)

-অমিয় বন্দোপাধ্যায়

লেখক প্রখ্যাত প্লাস্টিক সার্জেন হলেও তাঁর প্যাশন হল লেখা। এ পর্যন্ত প্রকাশিত ৬ খানি উপন্যাস। এর ৪ টি-র ইংরেজি ভাষান্তর হয়েছে - সবগুলোতেই স্বনিষ্ঠ তিনি নানাভাবে নানা ফরম্যাটে সত্যের সন্ধানে মানুষের মনুষ্যত্বের গভীরে আলো ফেলতে চেয়েছেন। আদর্শবাদী সুঅধীত এই সাহিত্যিক প্রত্যক্ষ ও পরীক্ষিত জীবনের ঘাত-প্রতিঘাতের ভেতর দিয়ে ও দেশ-বিদেশের বহু বিচিত্র অভিজ্ঞতা অর্জন করে এই উপলব্ধিতে এসেছেন - মানুষই প্রতিনিয়ত মানুষের নৈতিক বিপর্যয় ডেকে আনছে। শ্রেয় প্রেয়-র দ্বন্দ্বে প্রেয় প্রাধান্য পেতে পেতে সীমাহীন ভোগসর্বস্ব জীবন তাকে তাড়িয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছে। আর একাজে মদত দিচ্ছে কর্পোরেট দুনিয়া। এই দুনিয়ার মানুষের জীবন সম্পর্কে যত কম জানা যায় ততই মঙ্গল; যত কম লেখা যায় ততই বাস্তব সত্যের আর একটা দিক উন্মোচিত হতে চায় - যা হল, মানুষ সব বিষয় শেষ কথা বলতে চাইলেও তা বলতে পারে না কারণ সে নিজেই জানে না, তাঁর অভীষ্ট কী। সৃষ্টির একটা নিজস্ব উন্মোচন-সত্তা আছে যা চিরকাল অধরাই থেকে যায়। কবি সাহিত্যিক শিল্পী এই অধরার দিকেই তাঁদের কালি কলম সব ছেনি হাতুড়ি এগিয়ে নিয়ে যান। এই অন্তহীন যাত্রায় পিছুটান চলে না, অসতর্কতা চলে না। নিষ্ঠা চাই, সততা চাই। অনিরুদ্ধর অন্বেষণে কোনও ভেজাল নেই; লেখালেখি করে পাবার আবিশ্ব-আশা তাঁকে এখনও পর্যন্ত বিচলিত করতে পারেনি। মনুষ্যত্বের অন্তহীন পরাভবের মধ্যে পড়ে এ যুগের মানুষ কেমন আছে, শ্রেণিভুক্ত সমাজস্তর রচনা করে ভোগসর্বস্ব জীবনের অতিপ্রসারে এই মানুষ কোনও শক্তির বলে সমাজ রাষ্ট্রকে নিয়ন্ত্রণ করছে, যার ফলে সাধারণ মানুষের জীবন কী ভাবে বিধ্বস্ত হচ্ছে - তাঁর উপন্যাসগুলিতে এই ছবি ধরা পড়েছে। প্রশ্ন হল, তবে কি মানব-সভ্যতার প্রসার ঘটেছে না? সভ্যতা শব্দের আসল অর্থ সভার মধ্যে আপনাকে পাওয়া আর সেই সভায় সকলের মধ্যে নিজেকে উপলব্ধি করা। এই সভা শব্দের ধাতুগত অর্থ  - যেখানে আভা, আলোক আছে। বিশেষভাবে বললে মানুষের প্রকাশের আলো একলা নিজের মধ্যে নয়, সকলের সঙ্গে মিলনে। এই আলোর খোঁজই জীবন। অনিরুদ্ধ এই আলোর সন্ধানে আপন সৃষ্টির ভেতর দিয়ে বের হয়েছেন। অতীত বর্তমান ভবিষ্যৎ  - তাঁর অনুসন্ধানের দর্পণে প্রতিফলিত হয়ে একটা সত্যই প্রকাশ করে - মানুষ এখনও মনুষ্যত্ব অর্জনের পথে এগিয়ে চলেছে মাত্র। দস্যু রত্নাকরের বাল্মীকি হয়ে ওঠার পুরাণ-কাহিনি, যযাতির পুত্র-যৌবন ধার করে বৃদ্ধ বয়সে সম্ভোগস্পৃহার অগ্নিদহণ; গৌতম বুদ্ধের বোধিসত্ত্বলাভ - এমন অজস্র উপমা উপকরণ প্রাচ্য জীবনের বহমান ছবি। সর্বত্রই একটিই সত্য স্পষ্ট হতে চাইছে - তা হল, মানুষের কিছু হয়ে ওঠার সংগ্রাম। একটি যুগের কণ্ঠস্বর অন্যযুগে অনুরণিত হয়। বহু যুগকণ্ঠ ধারণ করে আছে যে সত্য, তা হল প্রেম মৈত্রী করুণা দয়া দান ত্যাগ তিতিক্ষা সহিষ্ণুতা। সৎ সাহিত্যিক কবি শিল্পী যুগবাণীর উদ্গাতা। এখানে ব্যাপক অর্থে সকলেই শিল্পী। এই শিল্পী প্রতিটি বস্তু বিষয়ের ওপর গভীর অন্তর্দৃষ্টি প্রয়োগ করেন। এই দৃষ্টি শুধু জীবনের সমালোচনা নয়, বহিরঙ্গের দিকে তাকানো নয়, বুদ্ধির তীক্ষ্ণতা দিয়ে, দর্শনের অভিরঞ্জন প্রয়োগ করা হয়, এখানে আত্মার খোঁজই শেষ কথা। এর জন্য অন্তঃক্ষরণ ও আত্ম নগ্নায়ন চাই - শুদ্ধতা চাই। তবে একটা ডিভিনিটি, রচনার প্রসাদগুণ গুণ হয়ে ওঠে। চমৎকারিত্ব দিয়ে, স্পার্ক রচনা করে এই ডিভিনিটি আয়ত্ব করা যায় না। অতলান্ত গভীরতায় উত্তাল সমুদ্রে ঘূর্ণিময় বিপদ-সংকুল যাত্রায় মানুষের একটিই লক্ষ্য - আপনার আত্মার সম্মান।  এই সম্মানে সভ্যতা এক একটি দ্বীপের মতো। স্মৃতিসত্তা যেখানে চিহ্ন রেখে যায় মহাকালের যাত্রাকে অপ্রতিহত রাখতে। অনিরুদ্ধ বুঝেছেন উপন্যাস কোনও তত্ত্ব নয়, শুধুমাত্র শাখাপ্রশাখা সমৃদ্ধ কাহিনি মাত্র নয়। তাঁর সবগুলি উপন্যাসে কাল ও কালজ্ঞানের ভেতর দিয়ে তিনি মানব সম্বন্ধের নানা বর্ণময় ছবি এঁকেছেন। তাঁর রচনার ক্যানভাসে তিনি মনুষ্যত্বের রংটি শেষ পর্যন্ত ফুটিয়ে তুলতে চেয়েছেন। মানুষ কেবলমাত্র প্রাকৃতিক নয়, সে মানসিক। এই মানবিক ভাবানুসঙ্গেই জগত মণ্ডিত হয়। একবিংশ শতাব্দীর জীবনযাত্রায় মানুষের জীবনের রং রূপ কী তা সদ্ভাবে জানার জন্যে সৎ সাহিত্যই রচনা করতে হবে। এ সাহিত্য কী রচিত হচ্ছে? এখন লেখকের হাতে অ্যাজেন্ডা ধরিয়ে দেওয়া হয়, কর্পোরেট চাহিদা না মেটালে সাহিত্যিক হালে পানি পায় না। তাই বর্তমানে সৎ সাহিত্যের আকাল চলছে বলা যায়। অনুমান নয় নিঃসংশয়চিত্তেই এ কথা বলা যায়, এখনকার সাহিত্য পরজীবী। অনিরুদ্ধ এ ক্ষেত্রে ব্যাতিক্রমি।

ক্যানভাসে উপন্যাসটির ভূমিকায় আশিস কুমার চট্টোপাধ্যায় উপন্যাসটির মর্মবানীর নির্যাস যথার্থভাবেই ফুটিয়ে তুলেছেন। কাহিনি ছাড়া উপন্যাস হয় না। কাহিনির ভেতর দিয়ে জীবনের সত্য আর্টের সত্য হয়ে ওঠে। ক্যানভাসে এই সত্যটি লেখক অভিনব - আর্টের ফর্ম তৈরি করে মুখ্য চরিত্র নন্দিনীর জীবনে ফুটিয়ে তুলেছেন। নন্দিনীকে নানা বাস্তব পরিস্থিতির ভেতর দিয়ে কর্পোরেট চাহিদা মেটাতে হয়েছে। এই জীবন সংগ্রামের ভেতর দিয়েই প্রেম এসেছে জীবনে। অর্ণব তাকে সাংসারিক বন্ধন দিয়েছে সন্তান দিয়েছে, বেঁচে থাকার আনন্দ দিয়েছে। যখনই নন্দিনী এই আনন্দসুখ পেয়ে জীবনে থিতু হতে চেয়েছে, তখনই এক ভয়ঙ্কর বিপর্যয়। অর্ণবের মৃত্যু দুর্ঘটনায়। এখন তার একমাত্র অবলম্বন পুত্র অনীশ ও তার জীবনে চলার পথটিকে সুন্দর করে তোলা কী করে সম্ভব তার খোঁজ করা।

অনিরুদ্ধ সিরিয়াস লেখক এবং বিশ্বজীবনকে আত্মস্থ করে তার এই প্রত্যয় দৃঢ় - বিশ্বের মানুষকে প্রাচ্যের দিকেই মুখ ফেরাতে হবে একদিন না একদিন। তবে সাহিত্য সৃষ্টিতে যে দিকটি তিনি বারবার কম গুরুত্ব দিয়েছেন তা হল, ‘ডেলাইট প্রিন্সিপ্যাল’। ছোট্ট ছোট্ট ডিটেলিং-এর মধ্যে দিয়ে উপন্যাসের প্রাণরস ফুটে ওঠে। এই রসের জোগান উপন্যাস পাঠে পাঠককে প্রাণিত করে, একবার নয় বহুবার পড়তে ইচ্ছে যোগায়। সমকালের হয়েও তাঁর পাঠক সর্বজনীনতা পাবে না, কারণ তিনি সাধারণদের জন্য লেখেন না। তিনি বিশেষ পাঠক শ্রেণির লেখক, যে পাঠক উচ্চশিক্ষিত। শুধুমাত্র মাতৃভাষা জানলে তাঁর উপন্যাসের রস আয়ত্ত করা সম্ভব নয়। হয়ত এটাই তাঁর লক্ষ্য কারণ যে শ্রেণিকে সাহিত্যে বিশেষভাবে তুলে ধরেছেন - তাদের হাতেই এখন সাধারণ মানুষের জীবন ও ভবিষ্যৎ। রিয়েলিটির মুঠো শক্ত হাতে ধরে তিনি তাঁদের দিকে আঙুল তুলেছেন যারা মানুষ হয়ে মানুষের হৃদয় কুরে-কুরে খাচ্ছে। মানুষের মধ্যে মানুষের পূর্ণতার রূপটি কী তা ধরা পরছে না। ক্যানভাসে একটি সুখপাঠ্য উপন্যাস হলেও তাঁর ভেতরে মানব মুক্তি পথ কোথায় তার দার্শনিক নির্দেশ রয়েছে। আশা করব অনিরুদ্ধর ভবিষ্যৎ সাহিত্য সৃষ্টিতে অতি সাধারণ মানুষ অত্যন্ত সহজভাবে সহজভাষায় উঠে আসবে। 

-by Amiya Bandopadhay


Dear Aniruddha
I took time in finishing 'Canvas' because there is so many nuances in this novel. Your style is extraordinary. There is so many aspects of the mental and material worlds in this book, that are mind-boggling. I am sure the book is widely appreciated. Love.
Samirda

-by Dr.Samir Kumar Gupta, FRCS,MCh(L'Pool)


নীতা থেকে নন্দিনীঃ অবচেতনের ক্যানভাস

-তন্ময় দত্তগুপ্ত

উপন্যাসের জন্ম ইতিহাস বহু প্রাচীন।

বাংলায় সাহিত্যে প্রথম সার্থক উপন্যাস বঙ্কিমচন্দ্রের দুর্গেশনন্দিনী। প্রশ্ন আসতেই পারে সার্থক উপন্যাস কাকে বলে? প্রখ্যাত লেখক মোপাসাঁও স্বয়ং এই প্রশ্ন তুলেছিলেন। হেনরি জেমস তার সুবিখ্যাত আর্ট অফ ফিকশান প্রবন্ধে বলেছেন “As people feel life, so they will feel the art that is most closely related to it. This closeness of relation is what we should never forget in talking of the effort of the novel”. এই ‘closeness of relation’  উপন্যাসের শিল্প বিচারে প্রধান বিষয়।

উপন্যাসের আর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় দ্বন্দ্ব বা conflict। দ্বন্দ্ব গড়ে ওঠার একটি  সাধারণ সূত্র হল Main+Opposition=Conflict. অর্থাৎ মুখ্য চরিত্রের সঙ্গে বিপরীতমুখী চরিত্র বা খল চরিত্রের সংঘর্ষে দ্বন্দ্ব সংঘটিত হয়। এবং এই দ্বন্দ্বের মাধ্যমে উভয়েই একটি নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌছাতে চায়। এই দ্বন্দ্বের কিছু ভাগ হতে পারে Inner Conflict বা অন্তর্দ্বন্দ্ব, Outer conflict বা বহির্দ্বন্দ্ব এবং Jumping conflict বা আকস্মিক দ্বন্দ্ব। ব্যক্তির নিজের সঙ্গে নিজের দ্বন্দ্ব; অন্তর্দ্বন্দ্বের অন্তর্ভুক্ত। বহির্দ্বন্দ্ব হল ব্যক্তির সঙ্গে সমাজের বা পারিপার্শ্বিক পরিবেশের দ্বন্দ্ব। আর অনভিপ্রেত ঘটনা বা দুর্ঘটনার ফলে যে দ্বন্দ্ব; তাই আকস্মিক দ্বন্দ্ব। সামাজিক, ঐতিহাসিক, রোমান্টিক, পৌরাণিক প্রায় সমস্ত উপন্যাসে দ্বন্দ্বের এই প্রকাশভঙ্গী পরিলক্ষিত।

ভূমিকায় এত কিছু বলার কারণ একটাই।

অনিরুদ্ধ বসুর উপন্যাস ক্যানভাসে দ্বন্দ্বের বহুমুখী দিক প্রকাশিত। আর প্রকাশিত হেনরি জেমসের সেই ‘closeness of relation’ যা উপন্যাসের পড়তে পড়তে পর্যাপ্ত।

রাধার পর খাওয়া

খাওয়ার পর রাধা

বাইশ বছর এক চাকাতে বাধা।

চেনা চিরারিত ছক। যেন ক্যানন মেশিনে ফোটোকপি। সংসার, পরিবার, সন্তান উৎপাদন। চেনা দুঃখ চেনা সুখ চেনা চেনা হাসিমুখ। তাই জীবনের যবনিকাও পড়ে চেনা চক্রে। কিন্তু চেনা বৃত্তের বাইরে হাঁটতে চায় কেউ কেউ। তারা সংখ্যায় মুষ্টিমেয়। তাই তারা ব্যতিক্রমী। নিজস্ব মনের ক্যানভাসে অনুভূতির রঙে তুলি ডুবিয়ে তারা এঁকে যায় একের পর এক ছবি। শূন্য সাদা পাতায় পূর্ণতা দিতে চায় আজীবন।

পূর্ণতা কি আসে? পূর্ণতা কোথায়? অন্তমিলে না অমিত্রাক্ষরে?

ক্যানভাস উপন্যাসের মুখ্যরিত্র নন্দিনী পয়ারের পৃষ্ঠা ওল্টাতে ওল্টাতে খোঁজেনি দাম্পত্য সুখ। সে বরং অমিত্রাক্ষর কাটিয়েছে জীবন। মেয়েবেলা থেকে  তার চোখে  স্বপ্ন। স্বপ্নে দেখা পুরুষ। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে  তিক্ত তির্যক অভিজ্ঞতা। আগুনে আগুন। জ্বলে পুড়ে যায় স্বপ্নের শরীর। প্রেমিক ইন্দ্রনীল, নাচের শিক্ষক ঋতব্রত, এসকোর্ট কম্পানীর ক্লায়েন্ট সকলেই তার শরীরী উত্তাপ পেয়েছে। পায়নি বিমূর্ত মনের সুপ্ত ক্যানভাস। তুমি তো কেবলই কাম; কামনার কোজাগরী - এ যেন গড়পত্তা পুরুষের হস্তাক্ষর। নারী পুরুষের জ্যামিতিক যৌনতার পরেও অপূর্ণতা থেকে যায়। ঔপন্যাসিক অনিরুদ্ধ বসুর এখানেই  আত্মবিবৃতি - “বাৎসায়ন নারী পুরুষের এতো ভঙ্গি এঁকেও মনের ছবি আঁকতে পারেনি”। রামধনুর সাত রঙের মতই জীবনের সাত রাঙা রূপ তুলে ধরেছেন লেখক। এই সাতরূপী নন্দিনী বিচ্ছিন্ন হলেও তা একই জীবনের সপ্ত সুরের মতো। সারা জীবন ধরে সে চেয়েছে তার মনের ক্যানভাস রাঙাতে। উপন্যাসের শেষে সে পেরেছে। সে পেরেছে এই ছবি আঁকতে। রং তুলির নিখুঁত টানে নন্দিনী ছুঁয়েছে আত্মজীবনীর আকাশ। আকাশে আকাশে খণ্ডিত ‘আমি’-র রূপ। নন্দিনী খুঁজে পেয়েছে তার নিজস্ব ‘আমি’। এ যেন ‘তখন তেইশ’ চলচ্চিত্রের প্রধান চরিত্র তমোদীপের  অনুভূতি - “চারদিকে ছড়িয়ে আছে  রং। কম্পিউটারের ভি জি এ প্যানেল থেকে বেশি। মোর দ্যান সিক্সটিন মিলিয়ান কালারস। আমার শিল্পী হওয়া কে আটকায়!” গহন অনুভূতির রং-এ স্নাত দুজনেই। নন্দিনী এবং তমোদীপ। একজনের অনুসন্ধান প্রকৃতির মাঝে। অন্যজনের গভীরে। দিগন্ত বিস্তৃত ‘আমি’-র আকাশ। সত্তার সমুদ্রে ডুব দেয় উভয়েই। খুঁজে পায় নিজস্ব ‘আমি’। ধান্দার বিশ্বে বার বার ফাঁদে পড়েছে নন্দিনী। সহজ সরল রৈখিক পথ বদলেছে নিমেষেই। জটিল থেকে জটিলতর হয়েছে জীবন। জীবনের বাঁকে বাঁকে শুধু শরীরী খেলা। দিকশূন্য র‍্যাট রেস। কেবলই ছুটে চলা। মেঘে ঢাকা তারার নীতা বলেছিল - “দাদা আমি বাঁচতে চাই”। তেমনই করুণ কাতর মনস্বর।

কী যুগ্ম যোগসূত্র!

দুজনেই পুরুষতান্ত্রিক সমাজে বিপর্যস্ত। সময়ের ব্যবধানে তাদের যন্ত্রণার উৎস ভিন্ন। তবুও নীতা আর নন্দিনী মিলে মিশে যায় একই জীবনের ক্যানভাসে। যেখানে রক্ত আর রং একাকার। নীতা বা নন্দিনীর অহরহ রক্তপাত; সে তো খ্রীষ্টের নিয়তি। নন্দিনী কী এ যুগের নীতা? বা তার স্মৃতির পুনরাবিষ্কার? ক্যানভাস উপন্যাস পাঠে এমন অনেক প্রশ্ন ঝিলিক দেয়।

প্রকৃতপক্ষে অনিরুদ্ধ বসু উপন্যাসের ফর্ম নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করেছেন। ফেসবুকের এক অচেনা মহিলার বাক্যালাপ থেকে তৈরী তিনশ বাহান্ন পৃষ্ঠার উপন্যাস। নন্দিনীর জীবন কাহিনী বর্ণনা ভিত্তিক হওয়া সত্ত্বেও সরল রৈখিক নয়। জীবনের এখানে বহু বিন্যাস। বিন্যস্ত নন্দিনীর মনস্তত্ত্ব। কী আশ্চর্য পরিসমাপ্তি! উপন্যাসের উপংসহারে লেখকের অকপট স্বীকারক্তি। নিজের সত্তাকে বিযুক্ত করে আয়োজিত লেখক পাঠক কল্পিত কথোপকথন। এ যেন ব্রেষ্টের এলিয়েনেশন।

প্রচ্ছদ শিল্পী অদিতি চক্রবর্তীর রং তুলির মেধাবী উপস্থাপনায় উজ্জ্বল ক্যানভাসের প্রচ্ছদ। বইয়ের ছাপা ও বাঁধাই সর্বাঙ্গীন সুন্দর। দ্বন্দ্ব অন্তর্দ্বন্দ্ব এবং আকস্মিক দ্বন্দ্বের সমাহারে অনিরুদ্ধ বসুর লেখনী উপন্যাসের গতিকে দ্রুত করে। সেই সঙ্গে মুগ্ধ করে লেখকের পোয়েটিক এ্যাপ্রোচ। যার ফলে প্রথম পাঠের পর দ্বিতীয় পাঠের আবেদন জন্মায়। সব শেষে বলি, ক্যানভাস এবং নন্দিনী একে অপরের পরিপূরক হলেও তা ব্যক্তি অতিরিক্ত এক ধারণা।

হয়ত আমাদের অবচেতনের ক্যানভাস।

-by Tanmoy Dattagupta


When you see a book of small size and less pages, you become quite skeptic if it would be able to deliver the package in its small story that will add enough value to impress you. I had the same doubt when I picked "The Moment" originally written by Aniruddha Bose in Bengali but translated in English by Partha Pratim Roy. It is often said that never read a book in a translated language as the literary value gets compromised as only the structure of the story remains but no soul. Both these myths had got busted with the completion of this novel. In its 160 pages only, the book has been able to deliver a great literary value in form of letters between two protagonists.       

Initially, in the first 10 pages, it was difficult to get in flow with the superlative language but as you proceed, the narration makes it easy for you to read the book. The translation is wonderfully done which makes you realize how good this book would be in its original form. The philosophies and little bit of spirituality adds to the content of the story. There are many knowledgeable sections too which talks of pure science. When you are left with just 10-20 pages, you start feeling bad as you want the story to keep flowing. The treatment given to the story is surreal and like a poetry which just does not let you take a break while reading. And this is when there's not a single poetry, poem or prose in the book. Kudos!

Through the two characters, author has beautifully portrays how a human being finally breaks all his confinement to go through something which he never believes he would be able to. The characters were feeling suffocated in their marital relationship which made them go beyond the rekha defined by society and commit everything they considered sin few hours ago. It also describes perfectly the internal guilt that the characters are going through while breaking the barriers of their custom. With just two characters, author has been able to portray the status quo of the society and its naked reality. 

The climax is just great when you realize how author has been able to create 160 pages over a moment. That makes you realize the brilliance of the author and not even once while reading the chapters do you guess that the story is based on a moment which takes place between the protagonist. The only drawback of the over-all package of this book is its pricing i.e. Rs. 250/-. A reader would resist to pay more than a rupee/page if he is not too much fond of the literature. If you have loved reading classics and Kolkata's gem, then you won't think twice before having this book in your shelf. I give this book 4* out of 5.

 

-by Abhilash Ruhela


The Moment, by Aniruddha Bose in English by Partha Pratim Roy is a book of eternal love, one that overcomes all barriers and all boundaries, even that impassable between heaven and earth, and is not impossible for the hearts that we truly believe where life, death, time and difficulties cannot divide the destinies and souls.

On this narrative line, the book ventures into this world sacrilegious, cruel, causing suffering to those who inhabit it, and the authors writing guarantees results that attenuate the harrowing tale through a concrete narrative with the style clear, linear and modern that portrays the story with lightness and intensity, to include in a short novel a long story that transcends time and space.

In the novel, real human love carnal, passionate, joins a higher love, to deal with the difficulties, fight and overcome the forces that goes beyond and which are, therefore, intended to be hounded by powers operating with the aim to divide them and punish them for their transgression with the work flows quickly and catapults the reader into the mind of disbelief and shock causing them to suffer and, then, causing them to hope that everything will be resolved.

It happens that touches the life of someone, you fall in love and decide that the most important thing is to touch it, live it with the melancholy and worries, and get to recognize yourself in the gaze of the other, to feel that you cannot do without and what if you have to wait for months and days including nights.

An original novel which shows the intense taste for bodied narrative, intense, tangible, in whose descriptions of people, colours and smells assumes a real dimension with the words are transformed into emotions and is the feeling that the unreal becomes concrete substance, accompanying, just like a shadow, the life of the protagonists.

The power of true love does not accept rules with the author was able to create a book of overwhelming passion and, creating a perfect alchemy between words and the reader, to the point that you cannot help but read and love the characters where the undisputed protagonist is the feeling, the real one, contrasted, able to question every certainty..

The characters live in social and cultural conditions that could only divide even if the separation characterized by choices imposed or desired, allow them to know and recognize right through the route taken with love upsets so much life to change forever the course, goals, thoughts and is physical, clear, passionate love described by the author.

It is initially a feeling of youth and later, in the last part of the book, an alienating senile affection, where between these poles, there is the life of the protagonists, lived according to very different paths, the one away from the other, always incomplete, all described with a unique style, sometimes elegant, sometimes passionate, where you can almost perceive the smells and the tastes.

It is a story of love, courage, hope and expectation a wait which is answered, only to the will of a man and woman who has never stopped to fight for the only thing in the world that had a meaning that they love despite everything.

Love, with all its facets, is the protagonist of these pages, that move the story, and the reader is involved in the story where every detail has been attended to capture interest from the first pages where time and love are linked by a thin and weak line with the first more often prevail than the second, but in this short novel is the strength of feeling to win against any law and dominate.

And that's how the characters will be etched forever in the memory of readers and among the most beautiful pages of the book just like a dance chase, feel, love, lost, left with the fear of being infected by a disease that knows no cure, no way out, that kind of love that does not like limits, or protocols to be followed, a love that defies time.

A hymn to timeless love, the courage to believe that after all it would be enough to fight to get what they ardently desire in just a space of time, nothing more but a space filled with hope.

 

-by Kalyan Panja


The Moment Promotion

-by You Tube


Sfulinga Promotion

-by You Tube


স্ফুলিঙ্গ 

-স্বপন দাস (সাংবাদিক) 

যে কোন সাহিত্য সৃষ্টির মধ্যে অন্তর্নিহিত থাকে সেই সময়কার ইতিহাস। স্ফুলিঙ্গের ক্ষেত্রে বলা যায় একটি দলিল, যা কি না রক্ষিত করেছে আজকের সমাজের কালো সাদায় মেলানো দিকগুলোকে। কিছু ব্যাক্তি স্বত্তার মুখের সঙ্গে তিনি কাল্পনিক চরিত্র হিসাবে পরিচয় ঘটিয়েছেন। যেটা একেবারেই বাস্তবের ছবি। এটি হয়ত সেই ক্ষেত্রে কিছু মানুষের কাছে অপছন্দের বিষয় হতেই পারে। তবুও বলা যায় অনিরুদ্ধ বসু স্ফুলিঙ্গের মধ্যে দিয়ে আজকের ইতিহাস ধরে রাখলেন।

 

-by Swapan Das


স্ফুলিঙ্গ নয় দাবানল........

- শান্তুনু চক্রবর্তী      

যখন এক অদ্ভুত সন্ধিক্ষনে দাঁড়িয়ে ঠিক সেই সময় হাতে এসে পড়ে, স্ফুলিঙ্গ। লেখক আমার পূর্ব পরিচিত। পেশায় কসমেটিক সার্জেন। তাই ছুরি-কাচিঁর মতো উনার কলম আর চিন্তাধারার নিখুঁত পরিবেশন। লেখকের  অন্বেষণ, নিঃশব্দে, দেখা, চক্র, ক্যানভাসে, তোমাকে, পারসিউট। একের মধ্য অনন্য । ভিন্ন মাত্রার, ভিন্ন স্বাদের। একসময় বাংলা সাহিত্য, সঙ্গীত, সিনেমা, সংবাদপত্রের কদর ছিলো আকাশছোঁয়া। কিন্তু, আজ কোথায় সেই স্বর্ণযুগ? আজকে বাজার নামের বিষফোঁড়া অনেক নামী, অনামি লেখকরা স্ফুলিঙ্গের মতো বিষয় নিয়ে লেখার সাহস দেখান না। কিন্তু, কেন? আসলে সবটাই গোপাল ভাঁড়ের গল্পের গা চাটাচাটির মতো ব্যাপার। এঁরা প্রায় প্রত্যেকে মিডিয়ার প্রসাদভোগী। তাই আজকাল বইমেলাতে বই এর বদলে খাবার স্টলে ভীড় বেশী চোখে পড়ে। মিডিয়ার নিউজ পেগের মতো মরা কান্নার রুদালি লেখকদের ভিড় থেকে অনিরুদ্ধ বসুর সাম্প্রতিক উপন্যাস স্ফুলিঙ্গ অনেক আলাদা। দীর্ঘদিন সাংবাদিকতা করার সুবাদে, ধান্দাবাজ শোভন রায়চৌধুরী, অঞ্জন বন্দোপাধ্যায়, প্রদীপ গোয়েঙ্কা, অবন্তী, গজেন্দ্র ধনি, পদ্মপর্ণা, মনিকান্ত মোহতা, ধূর্জটি রায় এবং মিডিয়া টাইকুন দিগ্বিজয় ভট্টাচার্যদের আমি হাড়েহাড়ে চিনি। এটা গল্প নয়, রিয়েলিটি। হ্যাঁ, এটাই আজকের মিডিয়ার  কদর্য, পাঁকে কাদায় পরিপূর্ণ  মিডিয়ার আসলি ছবি। ফিল্ম, সাহিত্য, খবরের কাগজ, বৈদ্যুতিন মাধ্যম সবেতেই অস্বাস্থ্যকর ঘিনঘিনে অবক্ষয়ের অন্ধকারে প্রস্তুত গোল গোল লাড্ডু পাঠক-দর্শকদের গেলানো হচ্ছে। স্ফুলিঙ্গ অপটু, অশিক্ষিত, রুগ্ন শিল্পের কারখানায় পরিণত হতে চলা মিডিয়ার দালালদের চেনানো ছাড়াও দেওয়ালির মতো প্রটাগনিস্টকে দিয়ে এর একটা সমাধান সুত্র দিয়েছেন লেখক। যা অনেকটাই পাঁকে পদ্মের মতো। বাস্তবে এমনটা হলে ভালোই হতো। আজকাল যারা বাঁজা জমিতে সংস্কৃতির চাষ করছেন, তাদের বলি একটু নতুন কিছু ভাবুন? আসলে এই অন্ধকার থেকে বাঁচতে স্ফুলিঙ্গ যথেষ্ট নয়, প্রয়োজন দাবানলের।।

-by Santanu Chackravarty


This is the second book written by Aniruddha Bose that I have finished reading. The book is "Canvas" which is translated in English by Purnasree Nag and published by Smriti Publishers. His first one was definitely mind-blowing and I liked how he managed to convey a concept through letters between two protagonists. This time he took another challenge of portraying life of a female in the seven facets of their roles in our society. He integrated seven different short stories in their diverse social roles into a single novella. The different women whom the author integrated together into one character named Nandini are a naive college lass, an artist, a danseuse victim, a slut, a pro, a vocalist, wife and a mother. Initially, it's difficult when the different characters of these women are introduced but when you start reading the story of their integrated character, Nandini, everything starts falling in the right place.

 Book is written in a sound literary language and author's good command on the language can be sensed right from the first sentence of this book until the last. I would like to talk about the translator, Purnasree Nag, who have translated this book in  English from Bengali. I understand that one has a set of good vocabulary but dumping it all in a book isn't a wise decision. Every sentences has 2-3 difficult words in English which not many readers might be familiar with which could make this novel quite a tough experience. There should be a fine balance on usage of difficult and easy words in any language. Rest, I would say that from literary point of view, this book is surely going to be in the favorite list of the readers following the genre.

 Initially when author discusses about how the female protagonist is getting victimized by different males is quite disheartening to read because that's a blunt reality of our life from past many years. But then how she manages to detach herself from the event though it keeps haunting her time and again is worth appreciating. The way canvas and paintings and cultures are discussed in 2nd half specifically are worth reading as the book becomes quite philosophical by then too. The climax is also beautifully narrated and in the end you feel to experience more about this multi-faceted character, Nandini. Talking about the drawbacks, I feel that the author should have taken some time whenever the character was going through a turmoil and changing herself from one state of mind to another. It all happens so suddenly sometimes that you miss the whole context and can't feel her pain or excitement. Rest, it's a fine attempt.

-by Abhilash Ruhela


Canvas by Aniruddha Bose, translated by Purnasree Nag offers a great depth and a poetical text that define a window on the world of women, through which every man can only fully grasp the aspects and insights every woman can finally feel, see and understand in its wonderful complexity that has its own language, smells, rhythms, music and atmosphere.

The book includes portraits of women alongside lyrical descriptions, true portraits in poetry that capture the essence of each unique aspect of being female. The colours interacts with human emotions where each colour is related a mood and activate each other in many facets that alone would not have.

Everything is contained in the instant, the soul in the present, in the sense of wonder felt for an emotion, a hug or a landscape, and the little things that catch us with their candour and their precious uniqueness in a world that wants to have a different approach, a new way to understand the love and sexuality, free of emotional dependency and balanced, which originates from the heart.

It is a book dedicated to the women, who have the gift to turn almost anything into almost everything, who can understand the immense value of an emotion, a kind gesture or a smile, who can go through life lightly without ever burdening the lives of others, because they want to be respected, understood and loved.

A book not only for women but also for men who are sensitive to the female who will be able to understand and get closer to their inner self and essence, to create a loving relationship. The author paint life in the form women, who are eminently bearers of life to give carnality that leaks from the subjects and yet clearly transpires from the canvases, albeit at times tempered by the style a bit naive of the faces of women.

The author proves as a writer of rare sensitivity, a true soul traveller, who with this book managed to travel the thousand paths, even the most hidden, inside a feminine soul. In the author there is a strong ability to grasp the feelings, emotions and states of mind of the female universe, who seems to know more about the women themselves to their complexity and their actual value, that our society has scaled down with time. 

In the book I found something new and intriguing, which describes women, who are different, but all with a common denominator with the description of the poetic force of magic, of the divinity that is in each woman and the strength and determination that they puts in facing life's adversities. 

The author puts the readers in front of a mirror that reflected mysterious and unknown sides to the women themselves. The book never judges, and its great sensitivity is comforting and reassuring for anyone who reads it that manage to highlight the existential pathways of the female mind, thanks to the carefully measured portraits. 

 

Thanks to the author who was able to make infinite feminine image of the soul, as it is infinite love that it shows towards the female universe with a book to be read and reread several times. Every time we will find out again. Every time we will discover something new in the women.
 

-by Kalyan Panja | 22-Aug-2016


I have read many novels, but reading Aniruddha Bose’s ‘Canvas’ was really a novel experience. Initially I began to read it casually more out of curiosity to know what my childhood friend would have written. As I progressed and got involved in its intricacies, I got engrossed fully and was awe struck, to see the fine balance the author has maintained in carrying through the thread.

It is certainly amazing how he could first deconstruct seven different characters (seven colours of the rainbow) and then reconstruct the same to blend as one character, much like the VIBGYOR’s beautiful final shape. Certainly a very challenging task but the author seems to thrive and even relish such challenges. The characters blend neatly, situations are intricately conceived and Nandini the central character emerges successfully after the ‘catharsis’.

Aniruddha Bose could have quietly taken the easier route and written seven separate novels, but that would have done grave injustice to the rainbow we call life. It is to his credit that he could achieve a great degree of synthesis and paint on his Canvas a submerged but triumphant image.

I perceived an undercurrent of the mystique and spiritual quest running profusely throughout the novel culminating in the eulogising of the Supreme Being in the last line ‘O Miti Brahma’ which is a profound statement from the Upanishad.

Nandini does not let her escapades and experiences in different places and times haunt her and turn her into a brooding morose woman. Rather, she undergoes a purge in the seven stages of metamorphoses and evolves finally as a spiritual being. This concept of evolution is well brought forth in the poignant story.

Descriptions are crisp and dialogues are pithy and tight. Every page takes you naturally to the next. The only thing this novel demands is your full concentration. The more you concentrate, the more you can enjoy reading the book.

I congratulate Aniruddha for accomplishing a tough task with consummate artistry. His experience gained in writing earlier novels, his erudition and sharp insight into human psyche has helped him weave a fine and wholesome image in his ‘Canvas’. I am sure his pen will flower further.

God Bless.

-by Ravi Ranganathan | 24-Sep-2016


CANVAS

-by You Tube


Seven is a magical number in Nature.

The seven hues of the rainbow are the kernel of the colours of the cosmos. Newton’s Colour Theory states the colours fuse to white in light or black in dark. These are perceptible platitudes of the spectrum. Beyond the visible, the ultraviolet and infrared play a sizable role for those who desire to look beyond the familiar pastels. Amid the identified colours of the canvas, only a few realise its significance. Those who can sense them, realise the mortal limitations onto an awareness to the realm of endless eternal bliss.

Canvas, an experimental novella of Aniruddha Bose, dissects the prime female protagonist into the seven facets of feminine roles in society, like the motley prismatic array of the spectrum. He entwines seven dissimilar short stories of females in their diverse social roles, into a single novella.

This could enlighten the readers to the awareness of eventual mortal bliss, which many forget in their worldly chores. The novella, easy to read, difficult to comprehend, is an eye-opener for those who aspire for the sublime awareness.

The naïve college lass, the artist, the danseuse victim, the slut, the pro, the vocalist, the wife, the mother is a veracity of life’s ever-changing pennants. They are a deceptive mirage in pursuit for the eternal haven, amid their varied feminine facets.

-by Purnasree Nag


ETERNAL MAYHEM by Aniruddha Bose: First Look

Readers are always fascinated by the eternally popular ‘WHODUNIT’ or mystery and suspense stories, and the volume of literature in this category is really awesome. The quantity is equally matched by the varieties of the stories in this genre. Starting with the all time favourite murder stories solved by maverick private detectives, these whodunit stories keep the readers glued to the book by the sheer varieties of presentation and the spiral conspiracies running behind the scenes.

Murders always fascinate the common man, probably due to his atavistic attraction to the blood and gory, and the more heinous is the motive behind the murder, the more violent is the style of murder, the more sophisticated is the murder weapon, the more is the attraction.

The motives range from the quintessential greed for money and/or power, the eternal lust for sex, the ever-present revenge for some real or imaginary crime to some apparently lofty ideals like racial supremacy.

The murder weapon also show a great variety starting from the old knives and ropes  to virulent viruses, with novel chemicals and biological weapons thrown in between.

The latest addition to the long list of these mystery thrillers is the so called ‘Scientific thrillers’, where science is mixed with the older ingredients to produce a heady concoction. Dr. Aniruddha Bose, an eminent Plastic Surgeon trained abroad, is a pioneer member of this latest genre. He is an expert story-teller who can effortlessly mix in correct proportions the cutting-edge science, sex and lust, ambition of the extra-ordinary type bordering to insanity, gruesome murders by newer techniques and previously unthinkable murder weapons and above all a completely new type of murderers. As a result, his scientific thrillers are a completely novelty in this genre.

His latest book, aptly named ‘Eternal Mayhem’, is a fine example of what a new generation scientific thriller should be. The book revolves around the villain’s morbid idea of Racial Supremacy and the fascinating idea of creating a new genetically super-race by genetic manipulation.  The story deals with the cutting edge development of Genetic Science mixing it up with an international array of locations and characters. The search for a pure Aryan Race through gene studies is not a new thing, but the author has done a really marvellous job by packaging the proverbial old wine in a new bottle. The fast paced thriller jumps from exotic locales to high-tech laboratories, from countries to countries, from continents to continents. Beautiful models mingle with brilliant scientists and death comes completely unexpectedly. The gripping story has all the ingredients of an excellent suspense-thriller, including liberal doses of sex and humour.

It will be crime to divulge the secrets in a mystery story, so it is better to stop here letting the reader to unveil the dark secrets of this book, and it is guaranteed that the reader will ponder over the book long after he or she finishes it.

-by Asis Kumar Chatterjee | 30-May-2017


Eternal Mayhem Promotion

-by You Tube


Book Review - Eternal Mayhem by Aniruddha Bose

Eternal Mayhem by Aniruddha Bose can be considered a science-based thriller that puts before the eyes an unreal story (or almost). But at the same time, the book makes me shiver and makes me reflect a lot because it deals with a theme of considerable importance. The story is concerning the creation of a new super-race by genetic manipulation. The arc of suspense is consistently built on, until the big resolution at the end.

How far can science go? What is the boundary between a form of research focused on the good of humanity and one that allows itself to be exploited by the desire for racial supremacy? What is the limit beyond which the thirst for knowledge can become a source of danger? What are the ethical implications of genetics, of cloning, of experimentation on human beings? 

The focus continues to be the eternal rivalry between the good and the evil. Here the difference is that the book focuses more on the evil ones. Everything seems to be going according to plan in the beginning. But the true danger is not apparent until the end. To these and other questions Aniruddha Bose does not only try to give answers but raises questions. The book focuses on issues of burning actuality, even within a conventional narrative framework. 

The plot takes place over a period of many years. The characters are partially predictable, but some are surprisingly different. Also very nice is the scenery. One travels through different places such as Bali, Fiji, Hawaii, Maldives, Bora Bora, Punta Cana, Jamaica and Puerto Rico.

What I have read is much more than a suspense-thriller. It is an outrageous vision of a good author. He shows us how small and sensitive our earth is and how little we know about the vast, wide universe. 

Aniruddha Bose is a Plastic Surgeon, and you can tell that on every single page. The author has tried to reread the canons of one of the most codified genres - the thriller. He enriches it with nuances of science. He makes a psychological dig as intense as possible of the complex figure of the protagonists but also of the other side characters.

The story sometimes appears a little predictable but is still quite intriguing and pleasant. The plot is varied and evolves on different levels because it is told from the point of view of different characters. This gives a far-reaching overview of all the events that are related to the protagonists. 

Overall, there is a multi-faceted and well-structured plot over a long period of time. There are interesting characters and many backgrounds to the motives alternated between exciting moments. The compelling thriller is able to show the reader how often science can go against ethics if its reins are in the hands of men without scruples. 

A captivating narrative style and a lively, as well as careful psychological construction of each character that animates the whole story, contribute to make this work by Aniruddha Bose a pleasant reading and a starting point for interesting reflections. 

Even the writing, which is thick and sharp at the beginning becomes more and more relaxed and traditional. It intends to reflect the psychological process of the main character. The novel is also dotted, from the titles of the chapters, some of which are more immediately understandable. Others stimulate interaction with the interested or passionate reader. 

The current novel like the previous ones is based on an entertaining mix of suspense and action. In this case, it is augmented by historical and scientific aspects and an Indiana Jones-like search for the antidote. One action sequence follows the next. There is hardly any time to catch your breath in this fast-paced thriller between science and mysticism and facts and fiction.

Aniruddha Bose knows how to keep his reader on the hook with an exciting, and nerve-wracking experience that follows. Maybe some elements are a bit obvious. But in the end, everything fits well enough. So, as a whole, I can claim to have enjoyed a good thriller! It is a must-read but not only for suspense-thriller fans!

 

-by Kalyan Panja | 08-Dec-2017


Eternal Mayhem  :  Quick Look

-by You Tube


Perfect Scientific Review

“Gone are the days of ancient epics, Epic of Gilgamesh, Homer’s Odyssey, Mahabharata. With evolving era, the art of story-telling has undergone radical mutation.” – Says author Aniruddha Bose.

The thriller master has finally come with his next and it is ready to excite you, excite you and enchant you. Author Aniruddha Bose has delivered one of his most successful thrillers in the market. After reading it you will just forget every other Crime, scientific thriller novels for the time you read Aniruddha’s heroics and his action-packed elements, murders, anxiety, moves, puzzles, and almost every movement.

#The Cover:# The cover, layout everything is just perfectly done by the publisher. The book is in hardcover format giving perfect a shape to it. The front cover shows some blood marks which excites the reader to turn the pages.

#Plot:# Eternal Mayhem is an interesting scientific thriller story by Aniruddha Bose. The author has already many books in Bengali and English languages into his account. The central point of this story is the villain of the story who is having an idea of Racial Supremacy and also the idea of creating a new genetically super-race by genetic manipulation. Author has set the story in international locations and also the characters. The story moves in different locations revolving around the research on finding a pure Aryan Race. There is beauty, there is death, and then the thrill comes. The complete page turner story has all the elements to make it a perfect read. The scientific thriller is action-packed and taut with various twists and turns. The twists and turns will keep you on the edge of your seat… and fingers will glide through pages to know more! A very engaging narration is observed. If you are a thriller story fan, you can go ahead reading this. I will not be revealing the complete story in the review, rather, I suggest readers get a copy from Amazon and enjoy the fabulous work done by the author.

#My Review:# I am 100% satisfied with the novel, I will surely give 5/5 to it. Author Aniruddha Bose has set the next level for the writers of this genre and I hope he will keep delivering similar thrillers in the future as well. The readers who want to spend some of their hours resolving a scientific murder puzzle which is filled with too many scientific connections, let’s get your hands on the “Eternal Mayhem” You won’t regret reading this thriller and would surely be waiting for the next one to come… Happy Reading!

-by Amazon Customer | 03-Apr-2019


A Scientific Thriller with a Crushing Force of Commitment for a New Generation

Eternal Mayhem by Aniruddha Bose, Smriti Publishers, Rs 500/-

The title of this thriller at the outset fixes the reader to cogitate - mayhem is eternal. Two words once conjoined burdens the mind of the reader to think - is it, we all are going to be sucked under by the maelstrom being unleashed by what is dangerously becoming a true clash of conflict between the past and the present generation?

The author in this thriller has featured a theory debate on whether the science of today would venture to human cloning for a new and sustained generation of human species or warn the scientists not to stoop to such endeavour by acting against established universal law. He, in no uncertain terms, has elected the reader to make an introspection over it, to conceive a strong symbiotic relationship between the past and the present. Equally has he guided their perception to an innovative idea of having altogether a new generation of human race, free from caste creed superstitions, so on and so forth, with the aid and support of epoch-making scientific and technological tools, abundantly researched out all over the world in the laboratories, where the best scientific brains of the world are pursuing the path of perfection in the field of human cloning.

Well conversant with the scientific research, the author as a renowned physician and surgeon, has appraised the reader of how a breakthrough in genome research is possible to create a perfect human race outside the purview of human claims of superiority – “A new breed can be created from a mutation of sperm and egg forming a new zygote. The body and the egg nucleus can be cloned by parthenogenesis by using chemicals, ultrasonic wave or even a virus which as a vector to maintain the number of chromosomes to 46 but alter the protein to a furbished form of a superior gene. This cultured stem cell in vitro can be introduced into the rival in vivo to give a new genetically modified stem cell which culminated in designer babies”

He puts forth a pertinent question - why this cloning is a necessity? Is it to have a racial superiority of human being? For what reason this superiority is to be established - the superiority Adolf Hitler, dictator of Nazi Germany wanted. Adopting the title of Fuhrer (leader), he gained dictatorial powers by the Enabling Act and suppressed the opposition with assistance of Heinrich Himmler and Josef Goebbels. He wrote his virulent autobiography Mein Kampf. Regarding inequality between races as part of the natural order, he exalted the ‘Aryan race’ while propounding anti-Semitism, anti-communism and extreme German nationalism. He began to enact anti-Jewish measures, which culminated in the Holocaust. He wanted total annihilation of the Jews. What a terror he created that a Nazi victim Pastor Niemoller described as follows:

“First they came for the Jews

and I did not speak out,

because I was not a Jew.

Then they came for communists

and I did not speak out

because I was not a Communist.

Then they came for the trade unionists

and I did not speak out

because I was not a trade unionist.

Then they came for me

and there was no one left to speak for me

The power corrupts and overriding powers give birth of dictators. What better human race has Arushi in Eternal Mayhem wished to develop?

Race is an evolving concept. The racial movements of human beings all over the eras have enriched human civilisation through mutative process by cross-fertilisation of the genes of the human species. As we know, each civilisation has carried this natural process, as social human beings. The question is, at any point of time over the eras of human civilisation, has there been any potent cry in the face of snowballing criticism, that human species is doomed to intellectual decline? Will our intelligence ebb away in centuries to come, leaving our descendants incapable of using technology their ancestors invented? Will Homo be without Sapiens? The questions remain unanswered. Rather these questions are not answerable. On controversial hypothesis the leading geneticists remain silent. They firmly believe that human brain has immense capacity to learn the tricks under the attack from an array of genetic mutations that have accumulated since people started living in cities a few thousand years ago. Prof Gerald Crabtree of Stanford University in California has put forward the iconoclastic idea, that rather than getting cleverer, human intelligence peaked several thousand years ago and from then intellectually alive of people and companions, with good memory, a broad range of ideas and a clear-sighted view of important issues.

In this thriller, Arushi is the dominant strategist. She is a cellular and molecular biologist from Harvard University. She, muster-stringing a group of scientists working in this field throughout the world with great commitment and courage, wishing to set up an Institute of Genetic Research in Kolkata, her place of birth, to usher in an era of new development in genetics, anthropology and neurobiology that might make a clear prediction that since our intellectual and emotional abilities are not sustained genetically and surprisingly fragile, we have to strive for developing a better and sustained human race. The authors through this and other characters has elaborated that “… Genetics with race seems the aetiology”. Though it is epoch-old genetic research for a new race, which is a continuous process. Genetically modified human cloning would obviously provide immortality to all human beings. But is it not a serious ethical and moral matter and challenge to the system of governance by the universal law, as was rightly meditated two-thousand years ago by the Roman Emperor Marcus Aurelius. The author has made a reference to this great soul:

For there is one Universe out of all, one God through all, one substance and one law, one common Reason of all intelligent creatures and one Truth’.

A comparison of the genomes of parents and children has revealed that on average there are between 25 and 65 new mutations occurring in the DNA of each generation. Prof Crabtree says “… this analysis predicts about 5000 new mutations in the past 120 generations which covers a span of about 3000 years’. Some of these mutations he suggests, ‘… Will occur within the 2000 to 5000 genes that are involved in human intellectual ability, for instance building mapping the billions of nerve cells of the brain or producing the dozens of chemical neurotransmitters that control the junctions between these brain cells’ A study by Prof Steve Jones, a geneticist at the University of London ‘… mutations have reduced our aggression, our depression and our penis length but no journal would publish that’.

Arushi's Institute could find more facts with more new ideas developed and translated into action – “Arushi’s long anticipated reverie was now a reality. Felicity evolves around living up to the dreams. Despite the mayhem around with the cloned babies delivered, her euphoria skyrocketed … She stared at the infinite vista, the ether hugged her vision in an idyllic kiss, intense pursuit froze in ambrosial bliss, soulful crave thawed in the pragmatic shade, kindling the pyre of life to its new glade. The nascent idea yonder, in realism splendour

But ultimately what actually happened? What was the fate of Protyusha, Arushi’s brainchild? Who will hold the Olympian Torch - the cloned child born of a mother who was pregnant without intercourse? Answer to this humble question could be assimilated by the readers at the very end of this unique thriller. The reader would also realise that the knowledge of existence of something we cannot penetrate, our perceptions of profoundest reason and the most radiant beauty.

On completion of reading this thriller, one may conclude to remember an illustrious utterance made by Neil Armstrong who after landing on the moon on 20 July 1969 ecstatically said – “That is one small step for man a giant leap for mankind”

The cover page of the book is praiseworthy. A few omissions and printing mistakes could have been avoided.

Amiya Bandopadhyay

13th February 2018

“Dakshinee" Flat 903

-by Amiya Bandopadhyay | 13-Feb-2018


A Quick Peep into ALO ANDHAR

Whatever cognised, groked, plumbed is finite. Beyond it, rest is infinite. Between the two exists an orphic realm. Most are twined in finite fetters seeking realisation, repose, amid its manacles. From crib to grave veiled by worldly illusive gossamer they seek the meaning of existence. Very few can gauge its volatility amid the crests and troughs of life. When they realise often it’s too late with scrimpy time left of reverting. Amid the finite, there is an illume aphotic grey zone. If one can feel it, one is able to taste infinite within finite realms. This Shangri-La is unique flavour of infinite in finite. The thirst to fathom this clandestine, anon world uplifts the mortal cognisance to fulfilment where transience, permanence fuses the sentience to universal vastness. ALO ANDHAR depicts the finite ‘Adhishthiti’ (Divine Union) of mortal ataraxis.

-by Purnasree Nag | 25-Aug-2017


আত্মপ্রতিষ্ঠার লক্ষে বিনির্মাণের বেদনায় বিদীর্ণ মানবজীবনঃ

একুশ শতকে মানবসত্যের হালহাকিকত ও লেখকের স্বপ্ন

যে কোনও রচনার ‘রিভিউ’ কাজটি সর্বার্থেই অনভিপ্রেত। তার প্রধান কারণ সমালোচক প্রায়শই বিচারক হয়ে ওঠেন এবং লেখককে বুঝে উঠতে পারেন না বলেই নিজের বিদ্যা জাহির করে বসেন। বর্তমান সমালোচকও সে দূষণ থেকে যে মুক্ত হবে - তা বলা যায় না। তবু বইটি রিভিউ করার জন্য হাতে এসেছে।

‘আলো আঁধার’ লেখকের সদ্য প্রকাশিত অত্যন্ত সংবেদনশীল উপন্যাস। অসাধারণ দক্ষতায় বিভিন্ন চরিত্রায়নের ভেতর দিয়ে বর্তমান প্রজন্মের এক বিশেষ শ্রেণির মানুষের জীবন যাপন প্রক্রিয়াকে তুলে ধরেছেন, যারা ভোগবৃত্তে আকণ্ঠ নিমজ্জিত। অসীম স্বর্ণালী বিজিত বর্ণালী সুবিমল মৃত্তিকা সম্বিত সোহম সুব্রত সৌম্য দেবমাল্য মল্লিকা দেবলীনা প্রমীলা প্রতীক পূর্ণেন্দু মিঃ খাস্তগির অরুন্ধতী প্রদোষ শিখা রক্তিমা নীলোৎপল প্রমুখ চরিত্র স্ব স্ব ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট ভূমিকায় অনবদ্য। তাদের দিয়েই লেখক উপন্যাসটির বুনন প্রক্রিয়ায় কনজিউমারিজম দুনিয়ার ছবিটি সুস্পষ্ট করে মানবসত্যের ও মানবধর্মের পরিণতি কোথায় - তার একটি দিশা দিয়েছেন। আশাবাদী তিনি স্বপ্ন দেখেছেন - নৈরাশ্য নয়, সম্বোধি। চরম বাস্তবের ভেতর দিয়েই তা অর্জন করা দরকার।  বিশাল জগদব্যাপী কর্পোরেট সাম্রাজ্য। তার কুশীলবদের খুশি রাখতে হয় - “ইটজ এ পার্ট অ্যান্ড অফ মডার্ন এক্সিজটেন্সস। এভ্রিথিং বয়েলস ডাউন টু ইকোয়েশনস। সারভাইভ্যাল অফ দ্য ফিটেস্ট। এটাই দুনিয়ার নিয়ম” মূল্যবোধের প্রশ্ন উঠলে এ প্রশ্নও উঠে আসে  - “গিভেন দ্য চয়েস বিটুইন ভ্যালুস অ্যান্ড বিজনেস, হুইচ উড ইউ চুজ?” প্রশ্নটি নারীর পুরুষের কাছে। অত্যন্ত আধুনিক হলেও পুরুষের সাদামাটা উত্তর - “আই রেস্পেক্ট ট্র্যাডিশনাল ভ্যালুজ। ওনার দেম উইথ মাই লাইফ। দ্যাটজ অ্যাজ ফার অ্যাজ মি অ্যাজ এ পার্সন। মাই ওয়ে অফ লাইফ অ্যান্ড রিয়ারিং ফ্যামিলি। ব্যবসার ব্যাপারে আই গো উইথ দ্য টাইড। যে দেবতার যে পুজো। এনিথিং ইজ ফেয়ার টু গেট মাই মিনস”

এখানে মিনস অ্যান্ড এন্ড শব্দ দুটি প্রণিধানযোগ্য। এখানেই সারা বিশ্বজুড়ে মানুষের অন্তরলোকে দ্বিচারিতা চলেছে। ট্র্যাডিশনে ভ্যালুজ আজ বহু প্রশ্নের সম্মুখীন। এ প্রশ্ন উঠছে - মানুষ কেন ভোগবৃত্তের বাইরে আসবে? বিত্তবানের সমাজমুখিন না হলে কি বা এসে যায়? তার তো নিজস্ব বাঁচার জগত আছে।

সীমায়িত আয়ুর অধিকারী মানুষ কেন বৈরাগ্যের পথ ধরে ত্যাগীর জীবন উপলব্ধ করতে চাইবে? অপরদিকে এ-ও তো বাস্তব সত্য - মানুষ সর্বত্যাগী হতে চায়। সে ভোগবৃত্তের বাইরে অন্য কোনও উত্তরণের পথ খুঁজে চলে। যুগে যুগে সে পথেও তো মানুষের পদচারণা ঘটেছে, পদধ্বনি শোনা গেছে। পরীক্ষিত বাস্তব জীবনের অভিজ্ঞতাই মানুষকে সে পথ দেখিয়েছে। এই উপন্যাসে লেখক সেই পথেই তাঁর কুশীলবদের টেনে এনেছেন।

মানবসত্তার প্রকাশে দু-টি ধারা সমান্তরালভাবে ব্যক্তিমানুষকে মহাজীবনে বা বিরাটমানবে উত্তরিত করেছে। সুস্পষ্ট দুটি ধারা - একটি প্রাচ্য অন্যটি পাশ্চাত্য। দুটি পথেরই শেষ কোথায় তা আজও অনির্ণেয়। লেখক বলেছেন প্রাচ্য পথই শ্রেষ্ঠ পথ - ভালোবাসার পথ, প্রেমের পথ, বৈরাগ্যের পথ ও অন্তরের পথ। সে পথে পা দিতে হলে আত্মনগ্নায়ন চাই, আত্মশুদ্ধি চাই, আত্মত্যাগ চাই। জীবন ক্ষেত্রটিকে সাধনাভূমি করে তুলতে না পারলে সে পথ লব্ধ হওয়ার নয়। প্রাচ্য ঋষি অরবিন্দ এই পথের পথিককে ‘Poetic Vision’-এর আধ্যাত্মিকতায় চৈতন্যময় দেখেছেন। পথিকের অগ্রগমনের প্রতি পদক্ষেপে এই ভিশনের রুপায়ন ঘটে চলে - “The poetic Vision of other things is not a criticism of life, not an intellectual or philosophic view of it, but a soul view, a seizing by the inner sense” এই পর্বেই মানুষ বৈশ্বিকবোধে উদ্দীপ্ত হয়ে ওঠে। সার্বরাষ্ট্রিক চেতনায় ঋদ্ধ সে বৃহত্তর সমাজগঠনের লক্ষে তখন আন্তর্জাতিক মানুষ। সে সবার সুখ চায়, সবাইকে ভদ্র হতে বলে, সকলের নিরাময় চায়। সে তখন সকল দেশের সকল মানুষের স্বজন - সে সবার। Jeremy Bentham (১৭৪৮- ১৮৩২ খ্রিস্টাব্দ)  দার্শনিক Immanuel Kant (১৭২৪- ১৮০৪ খ্রিস্টাব্দ)  এই বিশ্বসমাজের স্বপ্ন দেখেছিলেন। এই বিশ্বমানবের কোনও নিজস্ব জাতিসত্তা নেই। সে তাঁর আত্মপরিচয় ভুলে ও সাদা কালো ধনী দরিদ্র ভুলে, সারা বিশ্বের কল্যাণ ও সমৃদ্ধি কামনা করে। প্রেম প্রীতি মৈত্রীতে পূর্ণ পৃথিবীর স্বপ্ন তাঁর মনে প্রাণে সকল কর্মে। রোমান কবি ভার্জিল (৭০- ১৯ খ্রিস্ট পূর্ব) এই শান্তিময় যুগের (Golden Age of Peace) স্বপ্ন দেখেছিলেন। Walt Whitman (১৮১৯ - ১৮৯২ খ্রিস্টাব্দ) তাঁর Years of Modern কবিতায় এই একই আশা ব্যক্ত করেছিলেন। Alfred Tennyson (১৮০৯ - ১৮৯২ খ্রিস্টাব্দ) তাঁর Locksley Hall (১৮৪২ খ্রিস্টাব্দ) কবিতায় World Parliament সৃষ্টি বিষয়ে ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেনঃ

“Till the war-drums throbbed no longer

And the battle flags were furled

In the Parliament of Man

And Federation of the World”

আলো আঁধার-এর লেখক এই পরম্পরা প্রতিভূ। তিনি এক বিশেষ শ্রেণির মানুষের জীবন-যাত্রাকে এই উপন্যাসে তুলে ধরতে গিয়ে সারা বিশ্বের মানুষের জীবন-যাত্রার বাস্তব সত্যের চেহারাটি তুলে ধরেছেন প্রাচ্য মানুষের অতীত জীবনসত্তার আলোকে। চরম বাস্তবই তো বস্তু সত্যের দৈননন্দিতার অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে ভাবসত্যের গভীরে পৌঁছে অবশেষে অন্তরসত্যে অবগাহন করে। এখানে প্রাচ্য পাশ্চাত্যের সাধনায় কোনও ফাঁক নেই। বৈরাগ্যের বেদনাও কম নয়, ভোগরে জীবনেও আছে ভয়ংকর পরিণাম। দু-দিক থেকেই মানুষ অভিজ্ঞতালব্ধ জীবনকে বুঝতে চাইছে। প্রাচীন প্রতীক ও জীর্ণ ঐতিহ্য যা শৃঙ্খলে পরিণত হয়েছে, তা নির্দ্বিধায় পরিত্যাগ করার সাহস ও বিচক্ষনতা এখনও বিশ্বমানব দেখাতে পারেনি। এই উপন্যাসে লেখক তারও ইজ্জত করেছেন। যা শিলীভূত হয়ে গেছে তাঁর চর্চায় মগ্ন থেকে আপন সৃষ্টিশক্তিকে অমর্যাদা করার মানুষের একুশ শতকের পৃথিবীতে অভাব নেই। একথা সার্বিকভাবে সত্য, বাস্তবের মতো মানুষের অন্তরলোকেও অহরহ অন্যায় ন্যায়ের যুদ্ধ চলছে ‘যুদ্ধ জয়ের অর্থ ন্যায় ধর্মের জয় নয়, যুদ্ধ শুধু অন্যায় নয় অপরাধ। অন্যদিকে সংগ্রাম ছাড়া সত্যকে উপলব্ধ করা অসম্ভব। শান্তি সাধনা দ্বারা ত্যাগ দ্বারা, অর্জন করা সম্ভব’ লেখক বৈদিক মন্ত্র উদ্ধৃত করে পাঠককে তার অর্থ বোঝবার দিকে প্রাণিত করেছেন। শান্তি শব্দটি উচ্চারণ করতে হলে শব্দের অর্থ জানা দরকার কারণ শব্দ বুদ্ধিজাত, কর্ম মর্মজাত। শব্দ ও চিন্তা রক্তমাংসে পরিণত হওয়া চাই।  আপন অন্তরলীন প্রকৃতিকে উপলব্ধি না করলে মানুষের সে অসম্পূর্ণতা থেকে যায়। তার দ্বারা বুদ্ধিকে শাণিত করা যায় না, কর্মও মর্মজাত হতে পারে না। মানুষকে মর্ম দিয়ে জাগতিক প্রক্রিয়াগুলির দিকে নজর দিতে হয়। উপন্যাসের অসীম চরিত্রে এবং উপন্যাসের শেষ পর্বে বর্ণালী চরিত্রে তা ফুটে উঠেছে। শাশ্বত জীবনের অভীষ্ট এই জগত-ই দান করতে পারে। রোম্যান্টিক কবি P B Shelly (১৭৯২ - ১৮২২ খ্রিস্টাব্দ)  Adnois কবিতায় তা স্পষ্ট করেছেনঃ

“The One remains, the many change and pass

Heaven’s light forever shines, earth’s shadow fly.

Life like a dome of many-coloured glass

Stains the white radiance of Eternity”

লেখক এই উপন্যাসে পরমেশ্বর এই পৃথিবীতে যে অলক্ষ্যে বিশ্ব বিধান সমগ্র সৃষ্টিকে সচল রেখেছে ও প্রতিপালন করে চলেছে তার দিকে তাকিয়ে মানুষকে এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা দিয়েছেন শুধু নয়, মানুষ প্রতি মুহূর্তে এই বিস্ময়কে কারণ করে, আত্মস্থ করে, সৃষ্টির অংশ হিসেবে তার শ্রেষ্ঠত্বকে প্রতিষ্ঠিত করুক - সেদিকেও দৃষ্টিপাত করেছেন। এটা ঘটলেই তো বিশ্ববোধের জাগরণ ঘটে, বিশ্ব মানবিক সংগঠন গড়ে ওঠে। P B Shelly-র উক্তিতেই তা ধরা রয়েছেঃ

“For them, the common sense of most

Shall hold a fretful realm in awe

And the kindly earth shall slumber

Lopped in universal law”

এই উপন্যাসে লেখক যে মৌল ভাবনার আলোকে প্রাচ্য জীবনের বর্তমান সংকটগুলির প্রতি অঙ্গুলি নির্দেশ করেছেন, তা জগদব্যাপী মানবমনের বিস্ফোরণের দিক - এখানে প্রাচ্য পাশ্চাত্য একাকার হয়ে রয়েছে। বিজ্ঞান-প্রযুক্তি-উৎপাদনের ভুবনায়ন থেকেই যে কর্পোরেট দুনিয়ার জন্ম, তাকে অস্বীকার করার অর্থ পিছিয়ে পড়া। এখন প্রাচ্য পাশ্চাত্যের জীবনযাত্রায় জাতিসত্তার কোনও বিশেষ স্থান নেই, যদিও দেশে দেশে এক শ্রেণির উগ্রবাদীদের আস্ফালন এ ব্যাপারে সীমাহীন। বোধিদীপ্ত মানব জীবনে প্রাচ্য পাশ্চাত্য বোধে কোনও ফারাক নেই। তাঁদের উপলব্ধিতে সব পথই শ্রেষ্ঠ পথ - যে পথ ভালোবাসার পথ, অন্তরের পথ। লেখক এই উপন্যাসে ভারতীয় জীবনকে তুলে ধরে বৈশ্বিক ভাবনার আলোকে, যে এগিয়ে চলার পথ নির্দেশ দিয়েছেন, বিখ্যাত দার্শনিক Roma Rola তার ইঙ্গিত দিয়ে গেছেন সেই কোন অতীতেঃ “…realize that the Cosmic Ego, wherein are barn the infinite modes of the Universe, is where thee; at every moment of the life, see and do good in the world” এটাই গৌতম বুদ্ধের অন্তিম সময়ের শেষ উচ্চারণ বাণী প্রিয় শিস্য আনন্দের কাছে ‘আত্মদীপো ভব, আত্মশরণো ভব, অনন্যশরণো ভব’ - নিজেকে প্রদীপ করে তোলো, সেই আলোয় পথ খুঁজে নাও, অন্যের শরণ নিও না। বুদ্ধদেবের বোধিসত্ত্ব লাভের পর প্রথম উচ্চারণ ‘মা হিংগী’  - হিংসা কোরো না। তার দেওয়া বহু শীলের মধ্যে, একটি শীল  - ‘ন চ দিন্ন মা দিয়ে’ - যা তোমাকে দেওয়া হয়নি, তা তুমি নেবে না। ‘আলো আঁধার’ উপন্যাসে কর্পোরেট কর্তাদের জীবন-অভিজ্ঞানে এ-সব নৈতিক কৌলীন্যের স্থান নেই। ব্যবসায়িক ভোগবৃত্তের মধ্যে নারীকে পণ্য করে যে বৈষয়িক উত্থান তার শেষ কোথায়, তা পুরুষকে নয় নারীকেই খুঁজে নিতে হবে আপন শক্তিতে, যে শক্তি তার আছে, শুধু অদম্য উৎসাহ আর উদ্যোগ চাই। এ কাজে নারী যেন নারীর পাশে দাঁড়োয়, পুরুষ যেন সহমর্মী হয়। এই উপন্যাসের অন্তিমপর্বে অসীম বর্ণালীর সহযোগী হয়েছে। অপরদিকে নিজের বোন স্বামীকে ভুল বুঝে দিদিকে অহেতুক ধিক্কার জানিয়েছে।

উপন্যাসে অসীম ও মৃত্তিকা চরিত্র দুটি মহান উপলব্ধির এক বর্ণময় অংকন। আমৃত্যু বঞ্চিত মৃত্তিকা এইচ আই ভি পজিটিভ রোগাক্রান্ত হয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে, অথচ তার জীবনে যৌন সংসর্গের কোনও ঘটানাই ঘটেনি। এখানে চিকিৎসা জগতে কী পরিমাণ অবক্ষয় ঘটেছে তাও বিচার্য। অসীমের প্রতি মৃত্তিকার টান মনস্তাত্ত্বিক বিশ্লেষণের দাবি রাখে। উপন্যাস যত এগিয়েছে প্রতিটা চরিত্রই ততই নিড ও গ্রিড (Need and Greed) সস্পষ্ট হয়ে চরিত্রগুলিতকেও সুস্পষ্ট করেছে।

তবু প্রশ্ন থেকে যায় কোনও কোনও পাঠকের মনে। বর্তমান প্রাচ্য মানুষ কেন সামান্যার্থে অসুরশ্রেষ্ঠ বিরোচনের উত্তরাধিকারী। তারা কি এখন থেকে সাতাত্তর বছর আগে বর্ণিত রবীন্দ্রনাথের মহান্ত পুরুষের উত্তরাধিকারী? অবশ্যই নয়। কেন নয়?

“সেই পুরাতন কালে ইতিহাস যবে

সংবাদে ছিল না মুখরিত

নিজস্ব খ্যাতির যুগে -

আজিকার সেই মতো প্রাণযাত্রা কল্লোলিত প্রাতে

যারা যাত্রা করেছেন

মর্মর শঙ্কিল পথে

আত্মার অমৃত অন্ন করিবারে দান

দূরবাসী অনাত্মীয় জনে,

দলে দলে যারা

মরু বালুতলে অস্থি গিয়েছেন রেখে,

সমুদ্র যাদের চিহ্ন দিয়েছে মুছিয়া

অনারব্ধ কর্মপথে

অকৃতার্থ হন্ নাই তাঁরা -

মিশিয়া আছেন সেই দেহাতীত মহাপ্রাণ মাঝে

শক্তি যোগাইছে যারা অগোচরে চিরমানবেরে -

তাঁহাদের করুণার স্পর্শ লভিতেছি

আজি এই প্রভাত আলোকে -

তাঁহাদের করি নমস্কার”

(কালান্তর, ১২ ডিসেম্বর ১৯৪০ উদয়ন, শান্তিনিকেতন)

ঔপন্যাসিক এই একই বোধের শ্রেষ্ঠ উত্তরাধিকারী হয়ে পথ অনির্ণেয় হলেও প্রাচ্য বাণীর পুনরুচ্চারণ করে বর্তমান প্রজন্মকে সম্বোধি যুক্ত হতে এগিয়ে দিয়েছেনঃ

“পৃথিবীর অন্তরিক্ষ দ্যুলোক, জলগুলি ওষধি সকল বনস্পতি সমূহ বিশ্বদেব সমূহ বিশ্বদেবের গান ও সকল দেবতা আমার শান্তিরূপ হোক। তাঁদের সকল শান্তির দ্বারা এ কর্মে যে ভয়ংকর ক্রূর ও পাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে, সেগুলির শান্তি হোক, মঙ্গলময় হোক, সবকিছু আমাদের শান্তিকর হোক”  (অথর্ববেদ দশমসুক্ত ১৯ কাণ্ড ১ম অনুবাক)

এই প্রার্থনার ফলিত রূপ রবীন্দ্রনাথের বিশ্বভারতী প্রতিষ্ঠা যেখানে আজও উচ্চারিত ‘যত্রবিশ্বভব্যতেক নীড়স’

প্রশ্ন উঠবে, সেই অতীত আজ কোথায়, কোন পরিণাম বহন করছে? লেখকের স্বপ্ন বাস্তবায়িত হবে কী ভাবে? Aristotle স্বপ্ন দেখতে নিষেধ করেছিলেন। তাঁর গুরুর গুরু সক্রেটিস রোমান যুবকদের জীবনের লক্ষই বিচার-বিবেচনার পথ ধরে বদলে দিয়েছিলেন। তার জন্যে তাঁকে হেমলক পান করে শাস্তি হিসেবে মৃত্যু বরণ করতে হয়েছিল। স্ত্রী Xanthippe দুঃখ করেছিলেন “What a pity, you did not commit any wrong but had been forced to drink poison” । ক্রুদ্ধ সক্রেটিস উত্তরে স্ত্রীকে বলেছিলেন “Do you ask me to commit wrong and drink poison?” ছান্দগ্য উপনিষদের ৮ম অধ্যায়ে (৮/৭/৮) তৎকালীন ভারতবাসীকে বিরোচনের মতো সংগ্রামশীল হয়ে ওঠার পরামর্শ দিয়েছিলে, তাতে যদি অধঃপতিত ভারতবাসীর জাতিত্ব-বোধ একেবারে ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে যায়। অতীতকে অবলম্বন করে চলার দিন শেষ হয়েছে। আজকের ভারতবর্ষের মানুষ দেহাত্মবাদী ভোগবাদী অসুর শ্রেষ্ঠ বিরোচনের মতোই। প্রজাপতির কাছে শিক্ষা সম্পূর্ণ না করেই বিরোচনের অসুর গানের কাছে ফিরে গিয়ে উপনিষদের অসম্পূর্ণ শিক্ষাই ব্যক্ত করে বলেছিলেন “এই পৃথিবীতে দেহরই পূজা করিবে ও দেহরই পরিচর্যা করিবে। দেহকে মহীয়ান করিলে এবং দেহের পরিচর্যা  করিলেই ইহলোক পরলোক - এই উভয় লোকই লাভ করা যায়”

বর্তমান প্রজন্মও অন্তহীন পথে পা দিয়েছে প্রেয়কে পেয়ে, শ্রেয়কে লাভ করতে। তার জ্ঞান ভাণ্ডার তারই সংগ্রামী জীবনের অভিজ্ঞতা। ভারতের মানবসত্য কোন দিশা পাবে তা ভবিষ্যতই বলবে। Virgil তাঁর উত্তরাধিকারী প্রজন্মকেই দিয়েছিলেন সে বিচার করতেঃ

“The temporal and eternal fir, my son,

Thou hast beheld: thou art now come to a part

Whereof myself I see no further on.

I have brought thee hither both my wit and art.

Take for thy guide thine own hearts’ pleasure now

Forth from the narrows, from the steeps thou art”

ভার্জিল নিজের উপলব্ধিতেই শুধু বিশ্বস্ত থাকলেন না। প্রজন্মকে এগিয়ে যেতে বললেন সব কষ্ট ক্ষয় অবক্ষয় সহ্য করে। এই এগিয়ে যাওয়াই মানব জীবনের শ্রেষ্ঠ অভিব্যক্তি। এই এগিয়ে যাওয়ার অপ্রতিরোধ্য শক্তি তারই আছে - অন্য জীবের নেই। অগ্নিময় বিশ্বাস বুকে নিয়ে তার বৌদ্ধিক জাগরণ অহরহ ঘটে চলেছে। তার কোথাও থামা নেই।

চরৈবেতি চরৈবেতি।

লেখক এই উপন্যাসে সেই পথই দেখিয়েছেন। উপন্যাসটি কোনও অর্থেই বাজারি নয়। প্রচ্ছদ খুবই আকর্ষণীয় ও অর্থবহ। যে উপন্যাস বোধিদীপ্ত জীবনের বাণী বহন করে আনে সেখানে মুদ্রণ প্রমাদ, বানান ও উদ্ধৃতি ভুল না থাকাই অভিপ্রেত।

অমিয় বন্দ্যোপাধ্যায়

দক্ষিনি

১২/১০/২০১৭

-by Amiya Bandopadhyay | 12-Oct-2017


Alo Andhar Review Amiya Bandopadhayay

-by You Tube | 16-Oct-2017


Alo Andhar Promotion

-by You Tube


Release of Conundrum

-by Aniruddha Bose | 19-Sep-2018


Review of Conundrum

I must say your thrillers are very racy-chasy. James Hadley Chase would've lost the race while trying to decipher and unravel your morsels of not-so-morose Morse code. Laughed my way through your CONUNDRUM! Now I'm awaiting FEMALE KILLS VIA EMAIL, where your front-page credit lines must sing fulsome paeans of my praises. Srimati Lal as the Spine-tingling Chiller Muse. You provide jolly good competition to boring old Dame Agatha. You prove that Calcutta is racier and chasier, from Southern Avenue to ICCR and Newtown, than New York or London.

-by Srimati Lal | 06-Oct-2018


Conundrum Promotion

-by You Tube


Conundrum Introduction

-by You Tube


Review of Aniruddha Bose’s CONUNDRUM

Conundrum is a scientific English thriller par excellence. The author has used a rarest of rare skill of presentation of a riddle with pun and dreadful formidability that caused the death of thirteen otherwise innocent lives. The cause of such death remained unexplored to normal purview of the investigation of police. The question is, what good enough reason work as inputs to perpetuate such heinous crime? The experts in the research field opine chronic constant anger due to turbulent past might be the trigger of a revenge or it can be due to a manifestation of micro-psychotic episode causing Borderline Personality Disorder. The people with Borderline Personality Disorder often has a high IQ and a gage of wits than the usual motive. The bouts could convert the person to a serial killer than specific motive for a particular crime. According to sustained research findings, the present generation of humankind in some form reveal such behaviour trait and show an intrinsic disorder with varied manifestations. Often, they’ve unstable intense interpersonal relationships alternating to extremes - from idealisation or over-idealisation to devaluation. They might have chronic feelings of emptiness. The crucial feature is affective instability.

The author in this thriller has made this scientific finding very clear with observation that “Marked shifts of the baseline mood to depression, irritability, anxiety marked reactivity of the mood which we term as dysphoria. It could range from a few hours to days. A feeling of guilt often subconsciously works. It might lead to transient paranoid ideation or dissociation”. To make it clearer the author maintains “that in ideation or dissociative state, that's off the normalcy, there could be a transient phase, where out of anger to whatever reason, might lead to the assailant to commit these heinous deeds. This might be from stress due to whatever reason, from a feel of void”

The author with acute acumen ship very logically brings a Professor of Indian Statistical Institute working in a higher mathematical domain who could utilise his intellect and knowledge of psychiatry in order to make a deadly assemblage confronting one with the triple-bundled action for reaching out the solution. In such an endeavour Prof Summit needed stringent impute for self-realisation, being a fellow falling under the group of resistant obsessive persona, though he is a topper, end to end in his academic journey that ordained him to obtain a PhD from a foreign country in Statistical Research.

Conundrum being a scientific English thriller does not fall under the category of general genre areas for multiple reasons. As a physician par excellence and a person of highest intellectual and literary faculties, he highlights an age-old tradition of masculine promiscuity, repressing the feminine lust in socio-cultural and religious fetters, resultantly causing backlash with evolution, female multitude trailing the masculine attributes. When it boils the personal definition, it's ‘No… no’. I as a male child could fool around but you as my wife can't. With this conviction, he justifies deep-seated hypocrisy in maintaining the relationship between a male and a female.

In the novel author has very logically portrayed a character having supremacy over others for which he referred to the dominant personal attributes as that of a character Chitrangada in the epic Mahabharata. The author spares not himself to educate the readers about the use of the Fibonacci system of sequencing the murders that make this thriller highly engrossing. “In mathematics, sequence of numbers surprisingly useful applications in botany and other natural sciences. Beginning with two 1’s each new term is generated as the sum of the previous two: 1,1, 2, 3, 5, 8,13… The 13th century mathematician Leonardo of Pisa (c1170 – after 1240) also known as the Fibonacci discovered the sequence but did not explore its uses which have turned out to be wide and various. For example, the number of petals in most types of flowers and number involved in branching and seed formation patterns cause from Fibonacci sequence”. The Fibonacci system originated in India from the works of Pingala (200 BC) on itemising possible patterns of poetry from syllabus of two lengths, especially Sanskrit prosody known as ‘chandas’ in the Vedic verses. It had extensive use in Vedic literature (700 BC) Vedanga verses.

Ardent readers highly appreciate the language used in narrating the storyline of this unique thriller from beginning to the end and the author’s visualisation of nature on appropriate occasions, make depicting characters incisive and lively.

The cover page of the book commands attention of the readers.

-by Amiya Bandopadhyay | 01-Jun-2019


Prohelika Launch

-by You Tube | 01-Dec-2019


বিশিষ্ট প্ল্যাস্টিক সার্জেন বন্ধু অনিরুদ্ধ বোস একজন প্রতিষ্ঠিত সাহিত্যিক। বাংলা এবং ইংরাজি সাহিত্য রচনায় সে সমান দক্ষ। নয় নয় করে তার প্রায় ২৫টি উপন্যাস প্রকাশিত হয়েছে, যার মধ্যে অনেকগুলিই বেস্ট সেলারের তকমা পেয়েছে। কিন্তু তার সম্প্রতি প্রকাশিত ‘প্রহেলিকা’ রহস্য-উপন্যাসটি পড়ে চমকিয়ে গিয়েছি। রহস্যকাহিনী কিম্বা গোয়েন্দা গল্পের আকর্ষণ পাঠক সমাজের কাছে দুর্নিবার। কিন্তু অনিরুদ্ধ গতানুগতিক ছক ভেঙ্গে একেবারে অন্য ধারায় তার কাহিনী পরিবেশেন করেছে, যার পরতে পরতে বিস্ময় আর উৎকণ্ঠা। খুন ও খুনের ধরণ, খুনির মানসিক অবস্থান, প্রয়োগ-বিজ্ঞানে তার তুখোড় বুদ্ধির কাছে নাজেহাল হতে হয় ধুরন্ধর পুলিশ বিভাগকে। খুনির উদ্ধত চ্যালেঞ্জের মোকাবিলায় হিমসিম খায় সুমিত। প্রথম থেকে শেষ ২৭২ পাতা পর্যন্ত বুদ্ধি আর ধাঁধার মায়াজাল পাঠককে আবিষ্ট করে রাখবেই।

স্মৃতি পাবলিশার্স 

দাম ৩০০ টাকা

Purnendu Bikash Sarkar

-by Purnendu Bikash Sarkar, Eye Surgeon | 24-Dec-2019


Launch of Complete Works of Aniruddha Bose (Volume 1)
 

-by You Tube | 19-Sep-2019


Launch of Complete Works of Aniruddha Bose (Volume 2)
 

-by You Tube | 19-Sep-2019


Review of Aniruddha Bose’s If…

Aniruddha Bose has repeatedly shown his exemplary skill in handling multitude of characters and multiple murders in so such a wide variety of ways, spanning all over the globe in his thrillers, that we lose count; be it Pursuit, Conundrum or Eternal Mayhem. If… is no exception. And if you thought If… was all about murders you are mistaken. You will be taken on a journey through our ancient scriptures on scientific facts coaxing you to question who invented what! A new source of energy, black hole, super conductors... all lined with the unmistakable Aniruddha Bose trait of underlined philosophy. It is doubtful if the reader can pin this novel to any particular genre... one shouldn’t venture thus. In all an enticing gripping novel and most intriguing for the scientifically inclined.

-by Purnasree Nag | 15-Apr-2020


If... Promotion

-by You Tube | 13-Jun-2020


It’s just Unlock 1 and Aniruddha Bose with his indomitable spirit springs a surprise with Murder in the Time of Corona! A celebrity film star is murdered amidst lockdown. When everyone is so concerned with their own safety who would venture out and how to commit a homicide and that too of a celebrity? Well it happened and Aniruddha Bose has taken his readers on a spin. Unlike typical Bose novels with multitude of characters and multiple murders, here he has constrained himself to one murder and a handful of characters. Being a computer geek himself besides his profession, he could easily rove within the limitations that the pandemic presented. A short crisp story equally gripping as his other thrillers will make a good read. Close, very close to a perfect murder...nah! I won’t give away.

-by Purnasree Nag | 18-Jun-2020


Murder In The Time of Corona Promotion

-by You Tube | 06-Jul-2020


Reviews


Telegraph
19-Sep-2009

Sangbad Pratidin
19-Sep-2009

Anandabazar Patrika
19-Sep-2009

MILE MISHEY Review by Poet Nilacharjya
03-Feb-2010

MILE MISHEY Review by Poet Nilacharjya, pg2
03-Feb-2010

MILE MISHEY Review by Poet Nilacharjya, pg3
03-Feb-2010

BOIYER DESH
01-Apr-2010

BOIYER DESH, Advertisement
01-Apr-2010

Saptahik Bartaman
07-Aug-2010

DESH
01-Jan-2011

Anandabazar Patrika
22-Jan-2011

Anandabazar Patrika
29-Jan-2011

Anandabazar Patrika
22-Oct-2011

Anandabazar Patrika
19-Nov-2011

Anandabazar Patrika
07-Apr-2012

Hindustan Times
11-Apr-2012

Anandabazar Patrika
13-Oct-2012

Bartaman Patrika
18-Dec-2012

Saptahik Bartaman
19-Sep-2009

Saptahik Bartaman
27-Feb-2009

Calcutta Times
28-Dec-2008

Desh Patrika, Advt
03-Jan-2009

Echo of India
28-Dec-2008

Aajkaal Patrika
19-Dec-2008

Anandabazar Patrika
14-Mar-2009

Anandabazar Patrika
28-Feb-2009

Anandabazar Patrika
18-Jun-2011

Anandabazar Patrika
07-Jan-2012

Anandabazar Patrika
17-Nov-2012

Anandabazar Patrika
23-Apr-2011

Anandabazar Patrika
07-May-2011

Anandabazar Patrika
20-Aug-2011

Anandabazar Patrika
03-Sep-2011

Anandabazar Patrika
17-Dec-2011

Anandabazar Patrika
30-Jun-2011

Anandabazar Patrika
20-Aug-2011

Anandabazar Patrika
19-Nov-2013

Anandabazar Patrika
13-Apr-2013

Anandabazar Patrika
14-Apr-2012

Anandabazar Patrika
18-Feb-2012

Boiyer Desh, Advt
01-Oct-2011

Anandabazar Patrika
14-Jul-2012

Anandabazar Patrika
08-Sep-2012

Boiyer Desh, Advt
01-Jan-2012

The Telegraph
27-Feb-2012

Sakalbela
27-Feb-2012

Hindustan Times
28-Feb-2012

News Bangla
27-Feb-2012

Times of India
02-Mar-2012

Asian Age
27-Feb-2012

Sambad Pratidin
15-Mar-2012

Bangla Street
13-Mar-2012

Paper Tree
01-Feb-2013

Boiyer Desh
01-Feb-2013

Paper Tree
01-Jan-2013

Boiyer Desh, Advt
01-Jul-2013

Paper Tree
01-Mar-2013

Paper Tree
01-Aug-2014

Canvase Review
01-Dec-2014

Saptahik Bartaman
06-Dec-2014

Paper Tree
01-Jan-2015

Saptahik Bartaman
20-Aug-2011

Anandabazar Patrika
25-Dec-2010

Desh Patrika
01-Dec-2010

Boiyer Desh
01-Oct-2010

Saptahik Bartaman
14-Feb-2015

Aajker Onyotoma
04-Aug-2015

Saptahik Bartaman
05-Sep-2015

Saptahik Bartaman
28-Nov-2015

Anandabazar Patrika 28th November 2015
28-Nov-2015

Blogger Abhilash
22-May-2016

Books Are World
22-May-2016

DNA of Books
22-May-2016

Blogger Abhilash
12-May-2016

The Telegraph 30th August 2007
30-Aug-2007

Sananda 30th October 2007
30-Oct-2007

Financial Times 26th August 2007
26-Aug-2007

India Doot 27th August 2007
27-Aug-2007

Satyajug
29-Aug-2007

Suswastha 1st September 2007
01-Sep-2007

Blogger Abhilash
24-May-2016

DNA Books
24-May-2016

Books Are World
24-May-2016

Goodreads
24-May-2016

DNA Books
12-May-2016

Books Are World
12-May-2016

Goodreads
12-May-2016

Saptahik Barman 30-7-16
30-Jul-2015

Papertree
22-Aug-2016

Shillong Times
18-Sep-2016

Social
07-Dec-2016

Social Media
12-Jul-2016

Social Media
12-Jul-2016

Social Media
12-Jul-2016

Social Media
07-Dec-2016

Social Media
07-Dec-2016

Social Media
07-Dec-2016

Social Media
12-Jul-2016

Social Media
12-Jul-2016

Social Media
12-Jul-2016

Social Media
12-Jul-2016

Social Media
13-Dec-2016

Dekha Review in Ekdin
22-Jul-2017

Social Media
15-Aug-2017

Chakra Review in Ekdin
23-Sep-2017

Saptahik Bartaman
11-Nov-2017

Travtasy
08-Dec-2017

Ekdin 20th January 2018
20-Jan-2018

Review Ekdin
31-Mar-2018

Social Media
19-Sep-2017

Ekdin
01-Sep-2018

Ekdin
22-Sep-2018

Ekdin
17-Nov-2018

Ekdin
29-Dec-2018

Social Media
08-Apr-2019

Ekdin
03-Aug-2019

Social Media
07-Aug-2019

Social Media
07-Aug-2019

Social Media
07-Aug-2019

Social Media
07-Aug-2019

Social Media
07-Aug-2019

Ekdin
17-Aug-2019

Social Media
26-Aug-2019

Saptahik Bartaman
07-Sep-2019

Saptahik Bartaman
09-Nov-2019

Saptahik Bartaman
25-Feb-2020

Social Media
07-Jun-2020

Social Media
07-Jun-2020

Comments

MPEHWGBFWN73202022835